chandpur report 1065

চাঁদপুরের নব-নির্বাচিত মেয়রের ব্যতিক্রমী জনবান্ধব উদ্যোগকে সাধুবাদ

চাঁদপুর পৌরসভা হবে জঞ্জালমুক্ত, দালালমুক্ত ও ভেজালমুক্ত

তিনি কথা দিয়েছিলেন
বাস্তবায়নের নিরন্তর প্রয়াস

বার্তাকক্ষ :

চাঁদপুরের নব-নির্বাচিত মেয়র অ্যাড. জিল্লুর রহমান। পরিচ্ছন্ন একজন মানুষ। প্রাণশক্তি বেশি। মেধাবী ও প্রাজ্ঞ। মনে মনে হিতকর চিন্তা। চোখে আশার আলো। চাঁদপুর পৌরবাসীর জন্যে অভিশাপ নয়, বরং আশির্বাদের পাত্র নিয়ে অগ্রসর হচ্ছেন ধীরে ধীরে।

নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পাবার পরই দেখা গেলো এক ভিন্নচিত্র। নিজেই বেরিয়ে পড়ছেন পৌরবাসীর কল্যাণে। এ এক উদার মানসিকতা ও সুস্থ রাজনীতির চিত্র। এ এক ভিন্ন মানবতা। তিনি কথা দিয়েছিলেন, তা পালনের নিরন্তর প্রয়াস।

মেয়রের দায়িত্ব প্রথমদিন থেকেই তিনি ছোটখাটো এমন কিছু কাজ করছেন যার দ্বারা পৌরবাসী আশার আলো দেখতে পাচ্ছে। মানুষ বিশ্বাস করছে যে, এই শহরের বাসিন্দারা এখন তার ন্যূনতম সেবাটুকু অন্তত পাবে। জনগণকে আর নাক চেপে হাঁটতে হবে না এবং সড়কের দুপাশ জঞ্জালমুক্ত থাকবে। মেয়র মানুষের চাহিদাকে প্রাধান্য দিয়ে শহরের ময়লা-আবর্জনা থেকে পৌরবাসীকে মুক্ত রাখতে এবং শহরে একটু স্বস্তিতে হাঁটাচলা করার কাজে উদ্যোগী হয়েছেন।

চাঁদপুর শহরের প্রধান সড়কগুলোর দুপাশ জুড়ে অনেক ভ্যানগাড়ি সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে থাকতো। এসব ভ্যানগাড়িতে কাঁচা তরিতরকারি হতে শুরু করে ফলফলাদি এবং বাসাবাড়ির ব্যবহার্য পণ্য বিক্রি করা হয়ে থাকে। সকাল থেকে শুরু করে একটানা রাত পর্যন্ত রাস্তার প্রায় অর্ধেক অংশ এভাবেই দখলে রাখত অবৈধ ভ্রাম্যমাণ এসব ভ্যানগাড়ির দোকান।

ফলে এ সময় রাস্তায় অন্যান্য যানবাহন ও মানুষের চলাচল মারাত্মক সমস্যা হতো। রাস্তার পাশে যেনো কোনো ধরনের ভ্রাম্যমাণ দোকান, হকার বা ভ্যানগাড়ি না থাকে শহরবাসীর এ দাবিটি ছিল বেশ পুরোনো।

অবশেষে মডেল থানা পুলিশ এ ব্যাপারে উদ্যোগী হয়। শহরের প্রধানতম সড়ক জোড়পুকুর পাড় এলাকা থেকে পশ্চিম দিকে চৌধুরী মসজিদ পর্যন্ত রাস্তার দু’পাশে এখন আর কোনো ভ্যানগাড়ি দেখা যায় নি।

জঞ্জালমুক্ত দেখা গেলো সড়কের দু’পাশ। এটা সম্ভব হলো কীভাবে? কারণ খুঁজতে গিয়ে জানা গেলো, মডেল থানার পুলিশ শনিবার দুপুরের দিকে রাস্তার পাশ থেকে সব ভ্যানগাড়ি তুলে থানায় নিয়ে গেছে। ফলে আর আগের চিত্র দেখা যায়নি। রাস্তার পাশে একটা ভ্যানগাড়িও ছিলো না।

যদিও সন্ধ্যার পর পালবাজার এলাকায় কিছু ভ্যানগাড়িকে পুনরায় রাস্তার পাশে বসতে দেখা গেছে। তাই দিনের মধ্যে কয়েকবার ঝটিকা অভিযান চালানোর দাবি জানিয়েছে শহরবাসী। আর এই অভিযান অব্যাহত রেখে সড়ক যেনো সবসময়ের জন্য জঞ্জালমুক্ত রাখা হয়।

এদিকে শহরের বিভিন্ন পাড়া মহল্লায় এবং সড়কের পাশে অনেকদিন যাবত ময়লা আবর্জনার স্তূপ পড়ে থাকতো। পনরদিন কি একমাসেও এসব ময়লা নেয়া হতো না। মেয়র জিল্লুর রহমান জুয়েলের নির্দেশে শহরের বিভিন্ন পাড়া মহল্লা এবং সড়কের পাশে স্তূপ হয়ে থাকা ময়লা আবর্জনা পৌরসভার পরিচ্ছন্ন কর্মীদের তা’ অপসারণ করতে দেখা গেছে।

নব নির্বাচিত মেয়র অ্যাড. জিল্লুর রহমান জুয়েলের প্রাথমিক কাজে খুশি পৌরবাসী। এ ধারা অব্যাহত থাকলে চাঁদপুর পৌরসভা হবে জঞ্জালমুক্ত, দালালমুক্ত ও ভেজালমুক্ত। এ আশাবাদ রাখছি আমরা তার প্রতি।

আমরা সংবাদের বস্তুনিষ্ঠতায় বিশ্বাসী, পাঠকের আস্থাই আমাদের মূলধন

০২ নভেম্বর ২০২০ খ্রি. ১৭ কার্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরি, সোমবার

 

122 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন