chandpur report 1070

মতলবের পালস্ এইড হাসপাতলের ভয়াবহ চিত্র

# ডাক্তার নিজেই ছিলেন অসুস্থ # হাসপাতালের কোনো নিবন্ধন নেই # ডিপ্লোমাহীন অদক্ষ নার্স

শফিকুল ইসলাম রানা, মতলব উত্তর প্রতিনিধি :
চাঁদপুরের মতলব উত্তরে এক অসুস্থ চিকিৎসক চিকিৎসা করেন এক প্রসূতিকে। চিকিৎসক অসুস্থ্য থাকায় ঠিকমত চিকিৎসা না দিতে পারায় প্রসূতির মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, মতলব উত্তরের ছেংগারচর পৌরসভা ঠাকুরচর খান বাড়ির আবুল খায়ের খানের স্ত্রী লিমা আক্তার (২২) প্রসব বেদনা নিয়ে ছেংগারচর বাজারে অবস্থিত পালস এইড জেনারেল হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে শুক্রবার রাতে ভর্তি হয়।

৩০ অক্টোবর শুক্রবার রাত ৯ টায় লিমা আক্তার এর প্রসব বেদনা শুরু হয়। দায়িত্বরত চিকিৎসক এবং মতলব উত্তর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আকলিমা জাহান তানিয়া নিজেই অসুস্থ্য। সেজন্য তিনি তার কর্মস্থল মতলব উত্তর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ছুটি নিয়েছেন। নিজে অসুস্থ্য থাকার পরও নিজের প্রতিষ্ঠান বলে অতিরিক্ত দায়িত্ব নিয়ে প্রসূতিকে চিকিৎসা দেওয়া ঠিক হয়নি। তাছাড়া ডা. তানিয়া সার্জারি ডাক্তার নয় যে তিনি অপারেশন করবেন। এই হাসপাতালে কোন ডিউটি ডাক্তারও নাই। এখন এসব আলোচনার ঝড় উঠেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকসহ বিভিন্ন মহলে।

নিহত প্রসূতি লিমা আক্তারের পরিবারের অভিযোগ, অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে এবং চিকিৎসকের অসাবধানতার কারণে লিমা আক্তার মারা গেছে। ঐ দিন রাত আটটা থেকে বারোটা পর্যন্ত চিকিৎসাধীন অবস্থায় অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয় এবং হাইপেশার থাকা ছিল। পরে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ বন্ধ না হওয়ায় মুমূর্ষ অবস্থায় পালস এইড হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মালিক ডা. আকলিমা জাহান তানিয়া আমাদের রোগীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। পথিমধ্যে লিমা আক্তার মারা যায়। তবে সৌভাগ্যক্রমে তার নবজাতক পুত্র সন্তান সুস্থ রয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তিন বছর আগে পালস এইড জেনারেল হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার প্রতিষ্ঠা করেন তিনি। অভিযোগ রয়েছে প্রতিষ্ঠার পর থেকে এ প্রতিষ্ঠানের কোনো নিবন্ধন করা হয়নি।
অনিয়মে ভরপুর এই প্রতিষ্ঠান। হাসপাতালে যারা নার্সের দায়িত্বে রয়েছে, তাদের কারোরই একাডেমিক সার্টিফিকেট নেই। সিজারের সময় যে নার্স দায়িত্বে ছিলেন তার নাম ডালিয়া আক্তার। সে নার্সিং ওপর ডিপ্লোমা করেনি। এমনকি এসএসসি পাশও করেনি বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
অভিযুক্ত ডা. তানিয়ার সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে মতলব উত্তর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নুসরাত জাহান মিথেনের সাথে আলাপকালে জানান, ডা. আকলিমা জাহান তানিয়া অসুস্থ্য তাই তিনি ছুটিতে রয়েছেন। পালস এইড জেনারেল হাসপাতালে নিহত লিমা ভর্তি ছিল। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে প্রসূতি লিমা মারা গেছে, এ বিষয়টি ডা. আকলিমা জাহান তানিয়া আমাকে ফোনে জানিয়েছে।

সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মিথেন জানান, আবাসিক মেডিকেল অফিসার ও অভিযুক্ত ডা. আকলিমা জাহান তানিয়া কতদিনের ছুটিতে রয়েছে তা নিশ্চিত করতে পারেননি।

আমরা সংবাদের বস্তুনিষ্ঠতায় বিশ্বাসী, পাঠকের আস্থাই আমাদের মূলধন

০২ নভেম্বর ২০২০ খ্রি. ১৭ কার্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরি, সোমবার

124 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন