chandpur report 1436

শাহরাস্তিতে সিএনজি-অটোরিক্সা-মোটর সাইকেল চোরাই চক্রের ৮ সদস্য আটক

মোঃ কামরুজ্জামান সেন্টুঃ
চাঁদপুরের শাহরাস্তি থানা পুলিশ ৪৮ ঘন্টা অভিযান চালিয়ে আন্তঃজেলা সিএনজি, অটোরিক্সা ও মোটর সাইকেল চোরাই চক্রের ৮ সদস্যকে আটক করতে সক্ষম হয়েছে। ২৬ ডিসেম্বর (শনিবার) সকালে আটককৃতদের কোর্ট হাজতে প্রেরণ করা হয়।

থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, চলতি মাসের ৭ তারিখ দিবাগত রাতে উপজেলার চিতোষী পশ্চিম ইউনিয়নের আয়নাতলী গ্রাম হতে একই ইউনিয়নের হাঁড়িয়া গ্রামের মোঃ তাফাজ্জল হোসেনের পুত্র মোঃ কামরুল হাসানের (৪৫) মালিকানাধিন সিএনজি চালিত অটোরিক্সা চুরি হয়ে যায়। চুরি হওয়ার পর চালক নুর আলম ও মালিক কামরুল বিভিন্ন স্থানে সিএনজিটি খোঁজাখুঁজি করতে থাকে।

একপর্যায়ে পাশ^বর্তি সূচীপাড়া উত্তর ইউনিয়নের বসুপাড়া গ্রামের মৃত সেফায়েত হোসেনের পুত্র ফারুকের সাথে তাদের আলাপ হয়। সে জানায় কিছুদিন পূর্বে তার একটি সিএনজি চুরি হওয়ার পর টাকা দিয়ে পাশ^বর্তি নবাবপুর গ্রামের মমিন মেম্বারের বাড়ির আবদুর রহিমের পুত্র দিলদার হোসেন মহিন প্রকাশ দেলু (২৬), একই বাড়ির মৃত মনির হোসেনের পুত্র শাহাদাত হোসেন প্রকাশ হোসেন (৩০) ও কচুয়া উপজেলার কাদলা গ্রামের রংগার বাড়ির জামাল হোসেনের পুত্র মোঃ বাবলু’র (২৮) মাধ্যমে সেটি ফেরত পায়।

ওই সূত্র ধরে তারা দিলদার ও শাহাদাতের সাথে যোগাযোগ করলে তাদের চুরি যাওয়া সিএনজিটি টাকা দিলে ফেরত দিবে বলে জানায়। পরবর্তীতে চোরের দল এক লক্ষ বিশ হাজার টাকার বিনিময়ে ফেরত দেয়ার সিদ্ধান্ত হলে প্রথমে বিশ হাজার টাকা প্রদান করে। পরবর্তীতে সিএনজি মালিকপক্ষ বিষয়টি থানা পুলিশকে অবহিত করলে পুলিশ তাদের মাধ্যমে চোরের দলের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করে।

সেই মোতাবেক পরবর্তী টাকা দেয়ার সময় কচুয়া উপজেলার বিশ^রোড বাসস্ট্যান্ড হোটেল নিউ সৌদিয়া এন্ড রেষ্টুরেন্টের সামনে থেকে চুরি যাওয়া সিএনজি সহ আসামী দিলদার ও বাবলুকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। তাদের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে শাহরাস্তি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ আবদুল মান্নানের সার্বিক দিক নির্দেশনায় পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ মুরশেদুল আলম ভূঁইয়ার নেতৃত্বে উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবদুল আঊয়াল, আনিছুর রহমান, মোজাম্মেল হক, চৌধুরী আলম, সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) মোঃ শোয়েব আখন্দ, শাহজালাল শাকিল, এরশাদ মিয়া, তানভীর আহমেদ সঙ্গীয় ফোর্স ৪৮ ঘন্টার দীর্ঘ অভিযানে উপজেলার চিতোষী পশ্চিম ইউনিয়নের সংহাই হাজী বাড়ির আনোয়ার হোসেন প্রকাশ কবিরাজের পুত্র মোঃ আপন (২২), সূচীপাড়া দক্ষিণ ইউনিয়নের মোল্লা বাড়ির মৃত আবুল কালাম মেম্বারের পুত্র মোঃ জাফর (২৩), একই গ্রামের হুক্কুন আলী মিজি বাড়ির শহীদ উল্যাহর পুত্র ফরহাদ হোসেন (৩০), সূচীপাড়া উত্তর ইউনিয়নের বসুপাড়া আকবর পাটোয়ারী বাড়ির জামাল হোসেন প্রকাশ বেছুল হকের পুত্র তোফায়েল হোসেন প্রকাশ নাহিদ (২২), চিতোষী পশ্চিম ইউনিয়নের সংহাই পাটোয়ারী বাড়ির মোঃ নুরুল ইসলামের পুত্র মোঃ ছানা উল্যাহ প্রকাশ আবুল কালামকে (২২) আটক করতে সক্ষম হয়।

চোরাইকৃত সিএনজি চালিক অটোরিক্সার চালক মোঃ নুর আলম জানান, আমি প্রায় ২ বছর যাবত পাশ^বর্তি হাঁড়িয়া গ্রামের কামরুল হাসানের মালিকানাধিন সিএনজিটি ভাড়ায় চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করছি। ঘটনার দিন রাত অনুমান সাড়ে ৯টায় প্রতিদিনের ন্যায় আমার একচালা টিনের ঘরে সিএনজিটি রেখে খাওয়া-দাওয়া শেষে ঘুমিয়ে পড়ি। ভোর রাতে আমি প্রকৃতির ডাকে বাহিরে বের হলে একচালা টিনের ঘরের দিকে তাকিয়ে দেখি গাড়িটি নেই। তাৎক্ষনিক মালিক কামরুল হাসান ও বাড়ির আশপাশের লোকজনদের বিষয়টি অবগত করি। পরে গাড়ির মালিক সহ অন্যান্য লোকজন মিলে গাড়ির সন্ধান বিষয়ে কিছু তথ্য পেলে থানা পুলিশের সহযোগিতায় সংঘবদ্ধ চোরের দলসহ ও গাড়িটি উদ্ধার করা হয়।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ মুরশেদুল আলম ভূঁইয়া জানান, ৪৮ ঘন্টার অভিযানে চোরাই চক্রের ৮জনকে আটক ও চুরি যাওয়া সিএনজি চালিত অটোরিক্সাটি উদ্ধার করা হয়েছে। অচিরেই এই চক্রের মূলোৎপাটন করা হবে।

থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ আবদুল মান্নান জানান, আটককৃতরা আন্তঃজেলা সিএনজি, অটোরিক্সা ও মোটর সাইকেল চোরাই চক্রের সংঘবদ্ধ সদস্য। তারা সিএনজি চুরি করে আবার মালিকের কাছ থেকে মোটা অংকের চাঁদা নিয়ে ফেরত দেয়। চাঁদা না পেলে চোরাই গাড়িগুলো চক্রের অন্য জেলার সদস্যদের মাধ্যমে বিক্রি করে দেয়। আটককৃতদের কোর্ট হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। মামলার তদন্তের স্বার্থে চক্রের অন্য সদস্যদের নাম প্রকাশ করা সম্ভব হচ্ছে না।

243 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন