hazigonj 1

হাজীগঞ্জে প্রায় ৪০ বছর পর প্রতিপক্ষের জায়গা দখলের চেষ্টা, থানায় অভিযোগ

জহিরুল ইসলাম জয় :

হাজীগঞ্জে প্রায় ৪০ বছর পর এক ম্পত্তি প্রতিপক্ষের জায়গা দখলের অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় হাজীগঞ্জ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন মো. মোশারেফ হোসেন শিপন (৩৫) নামের একজন ভুক্তভোগী। তিনি পৌরসভাধীন ৯নং ওয়ার্ড এনায়েতপুর গ্রামের মৃত নজরুল ইসলামের ছেলে।

গত ২ ডিসেম্বর (বুধবার) দিবাগত রাত ১০টায় এ ঘটনা ঘটে। মারধর, মিথ্যা মামলার ভয় ও হুমকি-ধমকি দিয়ে সম্পত্তি দখলের পায়তারার অভিযোগ এনে মোশারেফ হোসেন শিপন একই গ্রামের ভুলু বেগম (৩৮) ও অহিদুল্লাহ (৫০) দম্পতির বিরুদ্ধে (বিবাদী করে) থানায় এই অভিযোগ করেন। অহিদুল্লাহ ওই গ্রামের মৃত সেকান্তর আলীর ছেলে এবং ভুলু বেগম অহিদুল্লাহ্ স্ত্রী।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, পৈত্রিক ও ক্রয়কৃত সম্পত্তিগত বিরোধের জেরে বিবাদী ভুলু বেগম ও অহিদুল্লাহ দম্পতি গত ২ ডিসেম্বর রাত আনুমানিক ১০টায় মোশারেফ হোসেন শিপনের ভোগ-দখলে থাকা সম্পত্তিতে সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে ও বালু ফেলে দখলের পায়তারা করেন। খবর পেয়ে মোশারেফ হোসেন শিপন ঘটনাস্থলে ছুটে এসে বিবাদীদের বাধা দিলে তাকে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ এবং মারধর করতে উদ্যত হন তারা। এ ঘটনায় বাড়াবাড়ি করলে বাদী মোশারেফ হোসেন শিপনকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে মিথ্যা মামলার হুমকি দেয় বিবাদী ভুলু বেগম ও অহিদুল্লাহ দম্পত্তি।

এ বিষয়ে বাদী মোশারেফ হোসেন জানান, এনায়েতপুর মৌজার ২৫৫নং খতিয়ান ভুক্ত বিএস ২১৮নং দাগে ২৪ শতাংশ ভূমির মালিক উত্তারাধীকার সূত্রে তার বাবা নজরুল ইসলামসহ ৪ জন। যা এনায়েতপুর গ্রামে কুমিল্লা-চাঁদপুর আঞ্চলিক মহাসড়কের উত্তর পাশে অবস্থিত। অপর দিকে একই মৌজার ১৫৩নং খতিয়ান ভুক্ত বিএস ২১৮ নং দাগে ২৩ শতাংশ ভূমির মালিক উত্তরাধীকার সূত্রে মৃত সেকান্তর আলী ছেলে বিবাদী অহিদুল্লাহসহ ৩ জন।

যা অভিযোগের বাদী মোশারেফ হোসেন শিপনের ভূমির উত্তর পাশে অর্থাৎ ওই ২৪ শতাংশের উত্তর পাশে এই ভূমি (২৩ শতাংশ) অবস্থিত। বিবাদীরা উদ্দেশ্যপ্রনোদিত হয়ে তার সম্পত্তি দখলের পায়তারা এবং তাকে হুমকি-ধমকিসহ বিভিন্নভাবে হয়রানি করে আসছেন।

এদিকে খবর পেয়ে গত সোমবার সংবাদকর্মীরা ঘটনাস্থলে সরেজমিনে গেলে স্থানীয় ও এলাকাবাসী বিবাদী ভুলু বেগমের বিরুদ্ধে শিপনের সম্পত্তি জোরপূর্বক দখলের পায়তারার কথা উল্লেখ করেন। এ ছাড়াও ভুলু বেগম ও তার স্বামী অহিদুল্লাহ বিরুদ্ধে একই কথা বলেন, অহিদুল্লাহর সহোদর ভাই শহিদুল্লাহ বিএসসি ও সালামত উল্যাহ্।

তারা দু’জনেই বলেন, বর্তমানে যেভাবে আছে, সেভাবেই গত প্রায় ৪০ বছর যাবৎ আমরা নিজ নিজ সম্পত্তি ভোগ দখল করে আসছি, কোন ঝামেলা হয় নাই। কিন্তু গত কয়েকদিন পূর্বে মোশারেফ হোসেন শিপনের সম্পত্তিতে সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে দেন আমাদের ভাই অহিদুল্লাহ ও তার স্ত্রী ভুলু বেগম।

একই কথা বলেন স্থানীয় এবং মাটি ও বালুর ব্যবসায়ী জাহাঙ্গীর হোসেন। তিনি বলেন, অহিদুল্লাহ ও তার স্ত্রী ভুলু বেগমের ভোগ-দখলে থাকা সম্পত্তি আমার মাধ্যমে ভরাট করা হয়েছে। যা মোশারফ হোসেন শিপনদের সম্পত্তির পেছনে। এখনো ওই সম্পত্তি তাদের দখলেই আছে। কিন্তু গত কয়েকদিন আগে হঠাৎ করে শিপনের সম্পত্তিতে সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে ও বালু ফেলে দখলে চেষ্টা করেন ভুলু বেগম।

বিবাদী ভুলু বেগমের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, উত্তরাধীকার সূত্রে সম্পত্তি বন্টন হলে আমরা সামনেও পাবো, পিছনেও পাবো। তাই আমরা সাইনবোর্ড লাগিয়েছি।

অভিযোগের তদন্তকারী কর্মকর্তা ও হাজীগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. সুমন মিয়া জানান, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি এবং উভয় পক্ষকে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে থানায় আসার জন্য বলেছি। তবে উভয় পক্ষ পৈত্রিক সম্পত্তি হিসাবে আগে পিচে সমান ভাবে ভোগ করে এসেছে। এখন সড়কের পাশে জায়গার দাম বৃদ্ধি হওয়ায় ভুলু বেগম পূর্বের ভাগ না মেনে এই সাইনবোর্ড লাগিয়েছে।

এ বিষয়ে হাজীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আলমগীর হোসেন রনি বলেন, তদন্তপূর্বক আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

119 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন