chandpur report 1700

কচুয়ায় গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার : আটক ২

ওমর ফারুক সাইম ,কচুয়া প্রতিনিধি : চাঁদপুরের কচুয়া পৌরসভা সংলগ্ন করইশ গ্রামের পূর্বপাড়া আলী আহম্মদ ক্বারী বাড়ির ইলিয়াছের ছেলে নাছির উদ্দিন (৩০) এর বসত ঘরের আড়া থেকে তার ৩ মাসের গর্ভবতি স্ত্রী সীমা আক্তার (২১) ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে কচুয়া থানা পুলিশ।

এ ঘটনায় সন্দেহভাজন হিসেবে স্বামী নাছির উদ্দিন ও ভাবী খালেদা আক্তারকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। সে একই উপজেলার কেশরকোট গ্রামের মিলন মিয়ার মেয়ে।

এ ব্যাপারে সীমার মা বিলকিছ আক্তার প্রকাশ খুকি বাদী হয়ে কচুয়া থানায় অভিযোগ করলে অভিজ্ঞ অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ মহিউদ্দিন হত্যা মামলা রুজু করেছে। যাহার মামলা নং-১৮ তারিখঃ ১৮/০২/২০২১ ইং।

মামলার অভিযোগে প্রকাশ বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) সন্ধা সাড়ে ৬ টায় নাছির উদ্দিন ও তার বড় ভাইয়ে স্ত্রী খালেদা বেগম (৩০) তারা দু”জন পরকীয়া প্রেমের আসক্তিতে সীমা দেখতে পেয়ে প্রতিবাদ করলে তাকে মারধর,কিল-ঘুষিসহ শ্বাসরোধ করে মেরে গলায় রশি বেঁধে ঘরের আড়ার সাথে ঝুলিয়ে রাখে।

সীমার মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে মামলার বাদিনীর ছোট ভাই সফিক ঘটনাস্থলে ছুটে এসে দেখতে পায় ভাগ্নীর হাটু বাঁকা অবস্থায় ঝুলন্ত লাশ। সফিক এ অবস্থা দেখে পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে সীমার মৃতদেহ উদ্ধার করে বৃহস্পতিবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) ময়নাতদন্তের জন্য চাঁদপুর মর্গে প্রেরন করে।

অভিযোগে আরো উল্লেখ থাকে যে, ইসলামি সরিয়ামত প্রায় ২ বছর পূর্বে নাছির উদ্দিনের সাথে সীমার বিবাহ হয়। এর আগেও নাছির উদ্দিন আরেকটি বিয়ে করেছিলো। সীমার সাথে বিয়ের পর নাছির উদ্দিন ওই বড় ভাইয়ের স্ত্রীর সাথে পরকীয়া প্রেমে আসক্ত ছিলো।

সীমা দফায় দফায় প্রতিবাদ করলে তাকে নির্যাতন করে আসছিলো। পুলিশ নাছির উদ্দিন ও তার বড় ভাইয়ের স্ত্রী খালেদা বেগমকে গ্রেফতার করে চাঁদপুর কোর্টে প্রেরন করে। অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মহিউদ্দিন জানান, আমরা মামলা নিয়েছি তদন্ত চলবে এবং ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসলে বলা যাবে একি হত্যা নাকী আত্মহত্যা।

শেয়ার করুন