Health logo

প্রস্রাবের জ্বালাপোড়া, ঘন ঘন প্রস্রাব, মেহ-প্রমেহ ও প্রস্রাবনালীতে পুঁজ-ইনফেকশন

সব ধরনের মানুষ প্রতিদিনই কোনো না কোনো শারীরিক সমস্যায় ভুগছেন। এসব সমস্যার সমাধানে কার্যকর কোনো প্রতিকার খুঁজে পাচ্ছেন না। তাদের জন্য আমাদের এই আয়োজন। জেনে রাখুন, কাজে লাগবে। আজকের আলোচনার বিষয় : প্রস্রাবের জ্বালাপোড়া, ঘন ঘন প্রস্রাব, মেহ প্রমেহ ও মূত্রতন্ত্র’র পুঁজ-ইনফেকশন সম্পর্কে। জেনে নিন কারণ ও প্রতিকার।

কিডনি ও মূত্রনালির সংক্রমণ Urinary Tract Infection (UTI).মানুষের শরীরের দুটি কিডনি, দুটি ইউরেটার, একটি ইউরিনারি ব্লাডার (মূত্রথলি) এবং ইউরেথ্রা (মূত্রনালি) নিয়ে মূত্রতন্ত্র গঠিত। আর এই তন্ত্রের যে কোন অংশে যদি জীবাণুর সংক্রমণ হয় তাহলে সেটাকে ইউরিনারি ট্র্যাক্ট ইনফেকশন বলা হয়।

কিডনি, মূত্রনালি, মূত্রথলি বা একাধিক অংশে একসঙ্গে এই ধরণের ইনফেকশন হতে পারে। এই সংক্রমণকেই সংক্ষেপে ইউরিন ইনফেকশন বলা হয়।

ঘন ঘন প্রস্রাব এবং এর সাথে প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া এই সমস্যার অন্যতম লক্ষণ। সাধারণত এই সমস্যাটি মহিলা ও পুরুষ উভয়ের মধ্যে হলেও মহিলাদের মধ্যে ইউরিন ইনফেকশনে আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতা বেশি।

মহিলাদের মধ্যে সবচেয়ে সাধারণ ব্যাকটেরিয়াল সংক্রমণ হল UTI; প্রায় ৫০% মহিলাদের জীবনে একবার এই সংক্রমণ হয় এবং যে মহিলাদের একবার এই সংক্রমণ হয়েছে, তাদের ক্ষেত্রে ৮০% মহিলাদের পরে আবার UTI হতে দেখা যায়। UTI এর ফলে কিডনি, ব্ল্যাডার বা মূত্রথলী এবং জরায়ুতে প্রভাব পড়তে পারে, যার মধ্যে ব্ল্যাডারের সংক্রমণ বেশি হতে দেখা যায় এবং এটি তত গুরুতর নয়।
মূত্রনালীর সংক্রমণ বা ইউটিআই – প্রকারভেদ
কোথায় হচ্ছে এর উপর ভিত্তি করে একে আবার বিভিন্ন নামকরণ করা হয়ে থাকে –
ব্লাডার বা মূত্রথলিতে হলে একে বলে সিস্টাইটিস
ইউরেথ্রা বা মূত্রনালিতে হলে একে বলে ইউরেথ্রাইটিস
কিডনিতে হলে একে বলে পাইলোনেফ্রাইটিস
কিডনি ও মূত্রনালীর সংক্রমণ
মূত্রনালীর সংক্রমণ বা ইউটিআই – লক্ষণ
ঘন ঘন প্রস্রাবের বেগ আসা, কিন্তু ঠিক মতো প্রস্রাব হয় না
প্রস্রাব আটকে রাখতে অসুবিধা হতে পারে
প্রস্রাব করার সময় তীব্র ব্যথা এবং জ্বালাপোড়া অনুভব হতে পারে
শরীর দূর্বল অনুভত হতে পারে
তলপেটে বা পিঠের নিচের দিকে তীব্র ব্যথা অনুভূত হতে পারে
ঘোলা ও দূর্গন্ধযুক্ত প্রস্রাব বা কখনো কখনো প্রস্রাবের সাথে রক্ত যেতে পারে
প্রস্রাব গাঢ় হলুদ বা লালচে বর্ণের হতে পারে
প্রস্রাব করার সময় জ্বালা বা ব্যথা হতে পারে
প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া ভাবের সাথে কাঁপুনি দিয়ে জ্বর আসতে পারে
ছোটদের ক্ষেত্রে ডায়ারিয়া, জ্বর, খেতে না চাওয়া ইত্যাদি নানা উপসর্গ দেখা যায়
মূত্রনালীর সংক্রমণ বা ইউটিআই – কারণ

বিভিন্ন ধরণের ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাসসমূহ বা বিরল ক্ষেত্রে ছত্রাক এর কারণ হয়ে থাকতে পারে। যেমন-
E. coli (Escherichia coli)
Proteus
Klebsiella
Pseudomonas
Enterobacter
Staphylococcus
Streptococcus
মূত্রনালীর সংক্রমণ বা ইউটিআই – অন্যান্য কারণ
যদি কারো কিডনি অথবা মুত্রথলিতে পাথর থাকে তবে তা স্বাভাবিক মূত্রত্যাগে বাধা প্রদান করে। এর ফলেও ইনফেকশন হতে পারে।
অনেকক্ষণ যাবত প্রস্রাব আটকিয়ে রাখলে সংক্রমণ হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। টেলিভিশন দেখার সময়, বাসে ট্রেনে যাতায়াত করার সময় বা জরুরী মিটিং-এর সময় অনেকেই প্রস্রাব আটকিয়ে রাখেন যা একদমই উচিত নয়।
যৌনসঙ্গীর ইউটিআই থাকলে শারীরিক মিলনের সময় অন্য সঙ্গীও সংক্রমিত হতে পারেন।
নিজস্ব পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা মেনে না চললে ইউটিআই হতে পারে।
ডায়াবেটিস, প্রেগন্যান্সি বা অন্য কোন রোগে যদি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে গিয়ে থাকে তাহলে ইউটিআই হতে পারে।

অনেক সময় অপারেশনের আগে বা পরে রোগীদের ক্যাথেটার পড়ানো হয়। যে ব্যক্তি স্বাভাবিকভাবে মূত্রত্যাগ করতে পারেন না ক্যাথেটার দিয়ে পাইপের সাহায্যে তাঁদের মূত্র বের করা হয়। বেশিদিন ক্যাথেটার পরানো থাকলে খুব সহজেই তার ইউটিআই হতে পারে।
মহিলাদের মেনোপজ-এর পর ইস্ট্রোজেন-এর ক্ষরণ কমে যায়। ইস্ট্রোজেন মূত্রনালির সংক্রমণে বাধা দেয়। মেনোপজ-এর পর সেই সম্ভাবনা একদম থাকে না। ফলে সংক্রমণের সম্ভাবনা আরও বেড়ে যায়।

Urinary Tract Infection (UTI) – Investigation
Blood Test for CBC
USG for KUB
Urine for C/S
কিডনি ও মূত্রনালীর সংক্রমণ – প্রতিরোধ
সবচেয়ে বেশী প্রয়োজন নিয়মিত ও পরিমিত পানি পান করা।
সকালে ঘুম হতে উঠে খালি পেটে পানি পানের অভ্যাস গড়ে তোলা।
প্রস্রাব আটকে না রাখা।
যখনই বেগ আসে তখনই প্রস্রাব করা।
কোষ্ঠ্যকাঠিন্য যেন না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।
মূত্রত্যাগের পর যথেষ্ট পানি ব্যবহার করতে হবে।
শারীরিকভাবে পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে।
ডায়াবেটিস হলে প্রপার হোমিও চিকিৎসার মাধ্যমে নির্মূল করা।
সহবাসের পূর্বে প্রস্রাব করা। এতে মূত্রনালিতে আসা সব জীবাণু পরিস্কার হয়।
স্যানিটারী প্যাড ঘন ঘন বদলিয়ে নেওয়া।
মুসলমানি করানো হলে সংক্রমণ হতে রক্ষা পাওয়া সম্ভব।
খুব আটসাট অন্তর্বাস না পরা। সুতী অন্তর্বাস পরিধান করা উত্তম।

মূত্রনালীর সংক্রমণ বা ইউটিআই – চিকিৎসা
ইউনানী ও হোমিওপ্যাথিতে কিডনি ও মূত্রনালীর সংক্রমণ বা ইউরিনারী ট্রাক্ট ইনফেকশন (UTI) উন্নত চিকিৎসা রয়েছে। পেসেন্টের বিস্তারিত উপসর্গ পর্যালোচনা করে একটি প্রপার হোমিও ট্রিটমেন্ট দিলে এই সমস্যা ধীরে ধীরে ঠিক হয়ে আসে। তবে এর জন্য এক্সপার্ট কোন ইউনানী বা হোমিও চিকিৎসকের পরামর্শক্রমে চিকিৎসা নেয়া জরুরি।

নিম্নে বর্ণিত চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ঔষধ সেবন করতে হবে। তাহলে শতভাগ শিউর আপনি এ রোগ থেকে মুক্তি পাবেন, ইনশাল্লাহ।

nk meho night king

আপনি কি অনলাইনে চিকিৎসার কথা ভাবছেন?

যোগাযোগ করুন
হাকীম মো. মিজানুর রহমান
মুঠোফোন :
০১৭৬২-২৪০৬৫০
০১৮৩৪-৮৮০৮২৫
০১৯৬০-২৮৮০০৭

সারাদেশে কুরিয়ার সার্ভিসে ডেলিভারী দেওয়া হয়।
ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার
স্বাস্থ্যসেবায় বিশ^স্ত প্রতিষ্ঠান

 

শেয়ার করুন