mizan rana nari

আমার মা আমার ‘বড় পীর’

নারী দিবস উপলক্ষে বিশেষ রচনা

মিজানুর রহমান রানা :
‘মা’ একটি শব্দ হলে এ শব্দটি বড় মধুময়, বড় আবেগময়, বড় ভালোবাসার নাম। আমার পিতা মৃত্যুবরণ করেছেন প্রায় বিশ বছর হয়েছে। আমি তখন দেশের বাইরে অবস্থান করছিলাম। বাবার মৃত্যুর সময়, জানাজার সময় পাশে থাকার সৌভাগ্য হয়নি। সেই আক্ষেপে আমি কিছুদিন পরই দেশে চলে আসি। তারপর এক বছর বাইরে থেকে আর যাওয়া হয়নি। দেশেই আছি, ভালো আছি আল্লাহর রহমতে।

বলছিলাম, মায়ের কথা। মা আমার অমূল্য সম্পদ। আমার এখন প্রায় ৫০ বছর বয়স চলছে, চুল-দাঁড়ি পেকেছে, তবুও আমি সব সময় বড় খুশি থাকি এই জন্য যে, আমার মা এখনও বেঁচে আছেন। সারাদিন অফিস করে, রাতে যখন যাই, মায়ের ঘরে তাঁর পাশে বসে গল্প করি, হাদিস-কোরআন পর্যালোচনা করি। খাওয়ার সময় মায়ের সাথে বসে একসাথে খাই। কথা বলি, নানান কথা।

আমি যখন অসুস্থ হই, আমার সন্তানদের কাছে শুনি, মা নামাজের পর মোনাজাতে আমার জন্যে দোয়া করেন। আল্লাহর রহমতে, আল্লাহর ইচ্ছায় মায়ের দোয়ার বদৌলতে আল্লাহ আমাকে শেফা করে দেন।

এমন সম্পদ এখন আমার আছে, যে সম্পদ অমূল্য, যা টাকা দিয়ে পাওয়া যায় না, সেটা হলো আমার মা। মায়ের কাছেই নামাজের তাগিদ পেয়েছি, এখনও পাই। আল্লাহকে স্মরণ করি আর মাঝে মাঝে অপলকে মায়ের দিকে তাকিয়ে থাকি এবং মনে মনে খুশি থাকি এই জন্য যে, আমার এই বয়সে এখনও আমার মা বেঁচে আছেন। এই সৌভাগ্য সবার হয় না।

আমি জেনেছি, আপনিও জেনে নিন : ‘সন্তান তার মা-বাবার দিকে যতবার অনুগ্রহের নজরে তাকায়, আল্লাহ প্রতিটি দৃষ্টির বিনিময়ে একটি করে কবুল হজ্জ্বের সাওয়াব দান করেন।’ (বায়হাকি-মিশকাত, পৃ. ৪২১)

তো আমি প্রতিদিনই মায়ের দিকে শ্রদ্ধা-ভালোবাসার চোখে তাকাই। আর আমার মায়ের বদৌলতে আমাকে আল্লাহ হজ্বের সাওয়াব দিতে পারেন। আমার মা এখনও বেঁচে আছেন বলে, এটা সম্ভব।

সন্তানের জন্য মাতা-পিতার দোয়া অবশ্যই কবুল হয়, তাতে কোনো সন্দেহ নেই। (তিরমিজি)

এই হাদিসখানা যিনি আমল করবেন, তিনি অবশ্যই সঠিক পথ পাবেন। আমি আমল করি, তাই পৃথিবীতে আমার সবচেয়ে বড় পীর হচ্ছেন আমার মা। আমার মায়ের দোয়া কবুলের নিশ্চয়তা আছে। সন্তানের জন্যে বাবা মায়ের দোয়া আল্লাহর দরবারে একশতভাগ কবুল হয়। তাই বাবার অবর্তমানে আমার মা এখন আমার পীর।

সব সময় তাই আল্লাহর দরবারে প্রার্থনা করি, “হে আমার প্রতিপালক! তাঁদের প্রতি দয়া করো, যেভাবে শৈশবে তাঁরা আমাকে প্রতিপালন করেছেন।”’ (সুরা-১৭ ইসরা-বনি ইসরাইল, আয়াত: ২৩-২৪)।

আপনিও আপনার বাবা-মায়ের জন্যে এই দোয়া করুন। কারণ আল কুরআনে বাবা-মায়ের জন্যে এই দোয়া মহান আল্লাহতায়ালাই বলে দিয়েছেন।

শেয়ার করুন