chandpur report 1783

চাঁদপুরে ইটের আঘাতে স্ত্রীর মৃত্যু ॥ স্বামী পলাতক

মো: সাদ্দাম হোসেন ॥ চাঁদপুরে যৌতুকের জন্য পারিবারিক কলহের এক পর্যায়ে স্ত্রীর মাথায় স্বামী শরীফ হোসেন খান ইট দিয়ে আঘাত করে ও গলা টিপে এক সন্তানের জননী গৃহবধূ সাথী আক্তার(২৪) কে হত্যা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ঘটনাটি ঘটেছে, ৩ মার্চ বুধবার সন্ধ্যায় চাঁদপুর সদর উপজেলার ১০নং লক্ষ্মীপুর মডেল ইউনিয়নের বহরিয়া বাজার এলাকার মোখলেছ খান নামক বড় খান বাড়িতে। এ ঘটনায় বুধবার রাতে গৃহবধূর পিতা মিজানুর রহমান পাটোয়ারী বাদী হয়ে হত্যার অভিযোগ এনে চাঁদপুর সদর মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছে। ঘটনার পর থেকে এলাকাবাসীর মধ্যে চাপা ক্ষোভ ও উত্তেজনা বিরাজ করছে।

চাঁদপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ আব্দুর রশিদের নির্দেশে থানার উপ-পরিদর্শক মো: মোস্তফা কামাল রাত ১টায় ঘটনাস্থলে গিয়ে সুরুত হাল শেষে লাশটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে।

ঘটনার বিবরনে জানা যায়, নিহত সাথী আক্তারের স্বামী শরীফ খান এরপূর্বে একটি বিয়ে করেছে পশ্চিম রামদাসদী দোকানঘর এলাকার রফিক মল্লিকের মেয়ে রোকেয়া বেগমকে। সে সংসারে তার দু’টি সন্তান রয়েছে। শরীফের নির্যাতনের শিকার হয়ে জীবন বাচাঁতে দু’ সন্তান নিয়ে প্রথম স্ত্রী তাকে তালাক দিয়ে বাবার বাড়িতে চলে যায়। গত ৩ বছর পূর্বে শরীফ খান চান্দ্রা এলাকার বাখরপুর পাটওয়ারী বাড়ির মিজানুর রহমানের মেয়ে সাথী আক্তারকে দু’ লাখ টাকা দেনমোহরে বিয়ে করে। সাথীর সংসারে দু’ বছর বছরের সুমনা নামে একটি কন্যা সন্তান রয়েছে।

নিহত সাথীর পিতা মিজানুর রহমান জানান, বিয়ের সময় শরীফকে ব্যবসা করার জন্য ২ লাখ টাকা দেয়া হয়। বিয়ের কিছুদিন পর থেকে শরীফ সাথীর কাছে আরো যৌতুক দাবি করে এবং তাকে নির্যাতন করতে থাকে। বিয়ের পর থেকে ৭ বারে যৌতুক বাবদ শরীফকে এক লাখ ৯০ হাজার টাকা ব্যবসা করার জন্য দেয়া হয়। এরপরও শরীফ পুনরায় যৌতুক দাবি করে যাচ্ছিল। গত মঙ্গলবার যৌতুকের জন্য সাথীকে শরীফ মাথায় এবং শরীরের বিভিন্ন স্থানে ইট দিয়ে আঘাত করেছে। আঘাত করার পর সাথী বিষয়টি ফোন করে তার বাবাকে জানিয়েছে।

চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডাক্তার আশিব হাসান চৌধুরী জানান, মরদেহের মাথায় ও শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ময়না তদন্ত শেষে প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে।

এ ব্যাপারে চাঁদপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ আব্দুর রশিদ জানান, ঘটনা জানান পর পর ঘটনাস্থলে থানার অফিসারকে পাঠাই। আমি ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। এ ব্যাপারে নিহতের পিতা বাদী হয়ে অভিযোগ দিয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

শেয়ার করুন