chandpur report 1886

চাঁদপুর মডেল থানার পুলিশের অভিযানে আন্তঃজেলা চোর চক্রের ৫ সদস্য আটক

মোঃ সাদ্দাম হোসেন ॥

চাঁদপুর মডেল থানার পুলিশের অভিযানে আন্তঃজেলা চোর চক্রের ৫ সদস্যকে আটক করা হয়েছে। চাঁদপুর শহরে ইদানিং দিনে-দুপুরে বেশ কয়েকটি বাসা বাড়িতে চুরির ঘটনা ঘটেছে। তারই সূত্র ধরে চাঁদপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ আবদুর রশীদকে পুলিশ সুপার মিলন মাহমুদ দিক-নির্দেশনা দিলে সেই নির্দেশে পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) সুজন কান্তি বড়ুয়া ও উপ পরিদর্শক রাশেদুজ্জামান সিসি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ এবং তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে চোর চক্রের সদস্যদের সনাক্ত করে।

পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) সুজন কান্তি বড়ুয়া, উপ-পরিদর্শক রাশেদুজ্জামান এবং এসআই আওলাদ হোসেন সঙ্গীয় সদস্যদের নিয়ে ঢাকার যাত্রাবাড়ি থানা করাটিতোলা এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৫ জনকে আটক করে। তবে এ চোর চক্রের মোল হোতা কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর থানার বলিয়াদী গ্রামের রফিকুল হাসানের ছেলে ইফতেখারুল হাসান সাঈদ (২৪) কে যাত্রাবাড়ি থানা পুলিশ আটক করে চাঁদপুর মডেল থানা পুলিশের অভিযানের পূর্বেই প্রেরণ করে।

চাঁদপুর শহরের মমিনপাড়ার সৌদি প্রবাসী মিজানুর রহমানের মালিকানাধীন হাজেরা নিবাসের চতুর্থ তলার ভাড়াটিয়া সালাউদ্দিনের ফ্ল্যাটে গত ৭ ফেব্রুয়ারি বিকেল ৩টায় একই ধরনের চুরির ঘটনা ঘটে। সালাউদ্দিনের ঘর থেকে নগদ আড়াই লাখ টাকা, ১৮ ভরি স্বর্ণালংকার ও ২টি ক্রেডিট কার্ডসহ মূল্যবান জিনিষ পত্র চুরি করে নিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে সালাউদ্দিনের স্ত্রী খাদিজা আক্তার বাদী হয়ে চাঁদপুর মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করে।

অপর ঘটনাটি ঘটেছে চাঁদপুর শহরের জোড় পুকুরপাড় এলাকার সিরাজ খানের বাসার চতুর্থ তলার ভাড়াটিয়া রাজু আহমেদের কক্ষে ২৫ ফেব্রুয়ারি সকাল ১০টায়। চোরের দল বাসা থেকে প্রায় ১০ ভরি স্বর্ণালংকার ও নগদ ৭০ হাজার টাকা নিয়ে যায়।

এ দু’টি বাসার চুরির বিষয়ে সিসি টিভির ভিডিও চিত্র সংগ্রহ করে চাঁদপুর মডেল থানা পুলিশ অভিযানে নামে। দুপুর ২টায় আটক চোরের বিরুদ্ধে সাংবাদিকদের বক্তব্য তুলে ধরেন চাঁদপুর সদর সার্কেল সিগ্ধা সরকার। তিনি জানান, গত ২৯ মার্চ রাত অনুমান ২টায় বিষ্ণুদী এলাকার পালকী হোটেল থেকে সংঘবদ্ধ চোর চক্রের সদস্য কামাল খন্দকার (১৯) ও আরিফুল ইসলাম আরিফ (২০) কে আটক করা হয়। তাদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে চুরির মূলহোতা হিমেল প্রকাশ হাড্ডি হিমেল (২২), সিফাত আহমেদ রাসেল (২৩) ও মোঃ ইমন হোসেন (২০) কে ঢাকার যাত্রাবাড়ি থেকে আটক করা হয়। এর মধ্যে হাড্ডি হিমুর বিরুদ্ধে ৭টি চুরির মামলা, আরিফুল ইসলাম ও ইমন হোসেনের বিরুদ্ধে ৫টি করে চুরির মামলা ডিএমপিতে বিচারাধীন রয়েছে।

চাঁদপুর মডেল থানা পুলিশ যাত্রাবাড়ি থানা পুলিশের সহায়তায় অভিযানে আটকৃতরা হলো : হাড্ডি হিমু (২২) করাটিতোলা যাত্রাবাড়ি, সিফাত আহমেদ রাসেল (২৩), উদ্দমগঞ্জ সোনারগাঁও, ইমন হোসেন (২০) করাটিতোলা যাত্রাবাড়ি, কামাল খন্দকার (১৯) নয়নগর দাউদকান্দি কুমিল্লা, আরিফ হোসেন (২০) করাটিতোলা যাত্রাবাড়ি।

শেয়ার করুন