Kishor gang

হাইমচরে অভিভাবক-রাজনৈতিক নেতাদের প্রশ্রয়ে তৈরি হচ্ছে কিশোর গ্যাং

সাহেদ হোসেন দিপু, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, হাইমচর :
সারা দেশে কিশোর গ্যাং এর দৌরাত্ম বেড়েই চলেছে। চারদিকে ঘটছে অনাকাংখিত ঘটনা। বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে জানাযায় পুলিশ প্রশাসনও কঠোর ভুমিকা রাখছে এ কিশোর গ্যাং দমনে। সারাদেশের মত হাইমচর উপজেলায়ও তৈরি হচ্ছে কিশোর গ্যাং। বড় ধরনের দূর্ঘটনা না ঘটলেও এলাকাভিত্তিক মহড়া, মারপিট করা, ইভটিজিং করা সহ নানা রকম অপকর্মে লিপ্ত হচ্ছে এ সকল উঠতি বয়সী কিশোররা যা কিশোর গ্যাং নামেই পরিচিত হয়ে উঠছে।

উপজেলার তেলীর মোড় সড়ক, আলগীবাজার কাটাখালী সড়কের আলগীবাজার বিআরডিবি অফিস এলাকা, হাইমচর কলেজ নতুন ক্যাম্পাস এলাকা সহ কয়েকটি এলাকায় বখাটে কিশোর গ্যাং এর উৎপাতে অতিষ্ট এলাকাসী। জানা গেছে অভিবাকদের প্রশ্রয়ের পাশাপাশি রাজণৈতিক নেতাদের ছত্র ছায়ায় গড়ে উঠছে এ কিশোর গ্যাং।

এরা নিজ নিজ এলাকায় যুক্ত হচ্ছে বিভিন্ন অপকর্মে। ক্ষমতা সমীহ আদায়, খারাপ কাজ করা এবং এক ধরনের সূরক্ষার আকাঙ্খা থেকেই কিশোর তরুনদের গ্যাং তৈরি হচ্ছে। তাদের বেশির ভাগই উচ্ছভিত্ত পরিবারের সদস্য। অনেকেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে ঝরে পড়া। এরা নিজ এলাকায় নিজেদের ক্ষমতাবান মনে করে চলে। পিছনে বড় ভাই (নেতা) আছেন মনে করেই অপকর্ম করতে বিন্দু পরিমান ভয় পায় না। এরা মাঝে মধ্যে আধিপত্ত বিস্তারের লক্ষে দেশীয় অস্ত্র সস্ত্র নিয়ে মটর সাইকেল যোগে মহড়া দিতেও দেখা যায়। সন্ধার পর হলেই রাস্তার পাশে কিংবা নির্জন যায়গায় গ্রুপে গ্রেুপে আড্ডায় লিপ্ত হয়।

এলাকাবাসী ধারনা এরাই রাতের আধারে চুরি চিন্তাইয়ের মত কাজ গুলে করে থাকে। পুলিশ প্রশাসনের পাশাপাশি অভিভাবকদেরকে আরো সচেতন হতে হবে। উঠতি বয়সী ছেলেরা কোথায় যায়, কার সাথে আড্ডা দেয় তা নজর রাখা। কিন্তু আমাদের সমাজে দেখা যায় এর উল্টো’ ছেলেরা কোন অপকর্ম করে আসলে সর্বপ্রথমে অভিভাকরাই তা ধামাচাপা দিতে উঠে পড়ে লাগে। কেথাও কোন মারামারি হলে এই অভিভাবকরাই আরো উস্কানি দিয়ে থাকে। যার ফলে এ কিশোররা কিশোর গ্যাং এ পরিনত হয়ে যাচ্ছে। এ কিশোররা বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটানোর আগেই হাইমচর থানা পুলিশ প্রশাসনকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করার জন্য জোর দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

শেয়ার করুন