kishorgonj bollatker

বলাৎকারের ঘটনায় কারাগারে মাদরাসার অধ্যক্ষ

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে আবাসিক ছাত্রকে বলাৎকারের মামলায় বড়খারচর আদর্শ নূরানী ও হাফেজিয়া মাদরাসার অধ্যক্ষ মুফতি ইয়াকুব আলীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

রোববার (১১ এপ্রিল) জেলার তাড়াইল উপজেলার সেকান্দর নগর এলাকার একটি বাড়ি থেকে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।

কিশোরগঞ্জ পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ বলেন, গত ৩১ মার্চ (বুধবার) দিবাগত রাত দুইটার দিকে মুফতি ইয়াকুব আলী মাদরাসার তৃতীয় শ্রেণিতে পড়া আবাসিক ছাত্রকে রুমে ডেকে বলাৎকার করেন। এ ঘটনা কাউকে না বলতে কোরআন শরীফ ছুঁয়ে শপথ করান অধ্যক্ষ।

গত ৬ এপ্রিল (মঙ্গলবার) একটি সামাজিক অনুষ্ঠানে অংশ নিতে বাড়িতে যায় শিশুটি। পরদিন মাদরাসায় যাওয়ার কথা বললে কান্নাকাটি শুরু শিশুটি। পরে বাবা-মায়ের কাছে সে ঘটনাটি খুলে বলে।

এ ঘটনায় শিশুর বাবা বাদী হয়ে গত ৮ এপ্রিল (বৃহস্পতিবার) কুলিয়ারচর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন। এরপর থেকে মুফতি ইয়াকুব আলী পালিয়ে ছিলেন।

কুলিয়ারচর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. আবুল কালাম জানান, ঘটনার পর থেকে আসামি ইয়াকুব আলী পলাতক ছিলেন। তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে তার অবস্থান নিশ্চিত হয়ে সেকান্দর নগর এলাকায় একটি বাড়ি থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

কুলিয়ারচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম সুলতান মাহমুদ বলেন, গ্রেফতারের পর প্রাথমিকভাবে পুলিশের কাছে অপরাধের কথা স্বীকার করেছেন তিনি। তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

 

শেয়ার করুন