mamunul hafajat

মামুনুলের কাছে ‘ক্ষমা না চাওয়ায়’ সাংবাদিককে মারধর, বাড়ি ভাঙচুর

হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের কাছে প্রকাশ্যে ক্ষমা না চাওয়ায় নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের স্থানীয় এক সাংবাদিককে মারধর ও বাড়িঘরে ভাঙচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই সাংবাদিকের নাম হাবিবুর রহমান। তিনি চ্যানেল এস নামের একটি বাংলা টেলিভিশনের নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি।

আহত সাংবাদিক হাবিবুর রহমান বর্তমানে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন তিনি।

মঙ্গলবার বিকালে সেই সাংবাদিক নিজে বাদী হয়ে সোনারগাঁ থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন বলে জানান পরিদর্শক (তদন্ত) তবিদুর রহমান।

তিনি বলেন, সোমবার রাতে সোনারগাঁ উপজেলা সনমান্দি ইউনিয়নের নাজিরপুর ভান্টি চর এলাকায় হেফাজতের নেতাকর্মীরা স্থানীয় সাংবাদিক হাবিবের ওপর হামলা চালিয়েছে। তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলে জানান তিনি।

এ ঘটনায় হাবিবুর রহমান বলেন, গত শনিবার (৩ এপ্রিল) সোনারগাঁয়ের রয়েল রিসোর্টে হেফাজতের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক ‘অবরুদ্ধ হওয়ার’ খবর পেয়ে অন্য গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে তিনি সেখানে গিয়েছিলেন। গত সোমবার (৫ এপ্রিল) রাতে উপজেলার সনমান্দী ইউনিয়নের ভাটিরচর গ্রামের বাড়িতে তিনি ঘুমিয়ে ছিলেন।

তিনি বলেন, এ সময় হেফাজতে ইসলামের স্থানীয় একদল যুবক লাঠি হাতে নিয়ে মিছিল করে তার বাড়িতে প্রবেশ করে গালি শুরু করেন। তিনি ঘুম থেকে জেগে উঠলে তারা মামুনুল হককে ‘হেনস্তা’ করার অভিযোগ এনে ভিডিও রেকর্ড করে মামুনুল হকের কাছে ক্ষমা চাইতে বলে।

প্রসঙ্গত, গত ৩ এপ্রিল হেফাজতে ইসলামের নেতা মামুনুল হক এক নারীকে নিয়ে সোনারগাঁয়ে রয়েল রিসোর্টে যান। পরে সেখানে তাকে অবরুদ্ধ করে রাখে স্থানীয় লোকজন। হেফাজতের নেতাকর্মীরা ওই রিসোর্টে হামলা চালিয়ে পুলিশের কাছ থেকে ছিনিয়ে নেন মামুনুল হককে। এরপর মামুনুল হকের একাধিক অডিও রেকর্ড ফাঁস হয়। যেখানে ওই নারীকে নিজের স্ত্রী হিসেবে প্রমাণ করতে মরিয়া হয়ে উঠেন মামুনুল। এরপর থেকেই মামুনুল কাণ্ড নিয়ে দেশজুড়ে চলছে তোলপাড়।

8 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন