চাঁদপুর Dc chandpur

মেডিকেল ছাত্রী রূপার পাশে চাঁদপুর জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ

নিউজ ডেস্ক :
অর্থ সঙ্কটে মেডিকেল কলেজে ভর্তি হওয়ার পথ প্রায় বন্ধ হতে চলেছিল মেধাবী শিক্ষার্থী সুমাইয়া আক্তার রূপার। তাকে আর্থিক সহায়তা দিয়ে সেই পথের কাঁটা দূর করলেন চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক।

চাঁদপুর সদরের মৈশাদী গ্রামের অসহায় পরিবারের সন্তান সুমাইয়া আক্তার রূপা নামে এই মেধাবী শিক্ষার্থীর মেডিকেল কলেজে ভর্তির আর্থিক সহযোগিতার দায়িত্ব নিলেন জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ।

সোমবার (২৬ এপ্রিল) দুপুরে নিজ কার্যালয়ে সুমাইয়া আক্তার রূপা’র মাসহ ডেকে এনে তাদের হাতে প্রয়োজনীয় আর্থিক সহায়তা তুলে দেন জেলা প্রশাসক।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তিন ভাইবেনের মধ্যে সুমাইয়া আক্তার রূপা সবার বড়। চাঁদপুর সদরের মৈশাদী গ্রামে তাদের বাড়ি। বাবা একসময় ক্ষুদে ব্যবসায়ী ছিলেন। পরে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ঘরেই অসুস্থ জীবনযাপন করছেন।

এতে আর্থিক দৈন্যতা চেপে বসলেও অদম্য সাহসের কারণে এগিয়ে যায় সুমাইয়া আক্তার রূপা ও তার ছোট এক ভাই ও এক বোন। এমন পরিস্থিতিতে সাহস আর মনের জোরে নানা সঙ্কট মাথায় নিয়েই তারা পড়াশোনা চালিয়ে যেতে থাকে। চাঁদপুর মাতৃপীঠ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি এবং চাঁদপুর সরকারি মহিলা কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করেন রূপা।

এরমধ্যেই এবার মেডিকেল কলেজে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেন তাই। তাতে মেধাবী তালিকায় উত্তীর্ণ হয়ে শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পান রূপা।

তবে আর্থিক সঙ্গতি না থাকায় কিছুটা হতাশায় পড়তে হয় তাকে। একপর্যায়ে চাঁদপুর জেলা প্রশাসকের কাছে এই নিয়ে সহযোগিতা চান রূপা। এতে তার ডাকে সাড়া দিয়ে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেন, জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ।

সহায়তা পেয়ে সুমাইয়া আক্তার রূপা বলেন, ভর্তির সুযোগ পেয়েও ভেবেছিলাম- আর্থিক দৈন্যতার কারণে হয়তো আর মেডিকেল কলেজে পড়াশোনা হবে না। কিন্তু আমার এমন অনিশ্চয়তার কথা জেনে জেলা প্রশাসক পাশে দাঁড়ালেন। এই যেন কোনো দেবদূত বা ফেরেশতা আমার পাশে দাঁড়ালো। এ জন্য জেলা প্রশাসককে শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা জানান।

এদিকে, চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ বলেন, রূপার ভর্তির জন্য আপাতত যে পরিমাণ অর্থের দরকার ছিল। তার মায়ের হাতে তা তুলে দিয়েছি। তবে প্রয়োজনে আরও সহায়তা দেওয়া হবে।

তিনি আরও বলেন, কোনো মেধাবী মুখ যেনও ঝরে পড়তে না পারে তার জন্য সবসময় প্রস্তুত রয়েছি।

জেলা প্রশাসক বলেন, শিক্ষা প্রসারসহ যে কোনো মানবিক সহায়তা প্রদানে চাঁদপুর জেলা প্রশাসন প্রস্তুত আছে এবং আগামীতেও থাকবে।

11 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন