chandpur report 729 logo 1

মোবাইলকে কেন্দ্র করে হাজীগঞ্জে দু’গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত ৯

মোঃ সাদ্দাম হোসেন ॥ হাজীগঞ্জে দু’ গ্রামবাসীর সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে উভয় পক্ষের ৯ জন আহত হয়েছে। আহতরা স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। ঘটনাটি ঘটে ১৮ এপ্রিল রোববার রাত ৮ টায় হাজীগঞ্জ পৌর এলাকার আলীগঞ্জ ও কংগাইশ গ্রামবাসীর মধ্যে।
জানা যায়, ১ মাস পূর্বে পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের টোরাগড় গ্রামের সরকার বাড়ির মৃত মোবারক হোসেনের ছেলে আল আমিন তার সহপাঠিদের নিয়ে কংগাইশ রেলপথ ঘুরতে যায়। ফেরার পথে ওই গ্রামের আটিয়া বাড়ির রহমত উল্ল্যাহ ও মাহিমসহ আরো কয়েকজন আল আমিনের ব্যবহৃত রেডমি মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিয়ে যায়। ঘটনার দিন দুপুরে আল আমিন মাহিমকে ফোন করে মোবাইল ফোনটি দেয়ার জন্য। তখন মাহিম আল আমিনকে জানায়, ইফতারের পর তাদের এলাকায় গিয়ে মোবাইল ফোনটি নিয়ে আসতে। তাদের কথামতো ইফতারের পর আল আমিনসহ তারা কয়েকজন কংগাইশ গ্রামে গেলে সানি, রহমত, মাহিম ও অন্তর তাদেরকে মারধর করে। এতে তাদের ১ জন আহত হয়।
মারধরের খবর টোরাগড় এলাকায় পৌছলে শতাধিক লোকজন আলীগঞ্জে গিয়ে কংগাইশ গ্রামের কয়েকজনকে মারধর করে। এরই মধ্যে সৃষ্ট ঘটনা সংঘর্ষে রূপ নেয়। চলে ঘন্টাব্যপী ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া। এতে উভয় পক্ষের ৯ জন আহত হয়েছে। আহতরা হলো : আল আমিন, মাসুম, রাকিব, বাছির, শাওন, হৃদয়, রাকিব, সোহেল ও মহিন। আহতরা সবাই চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
খবর পেয়ে হাজীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ হারুনুর রশিদ সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নিয়ে আসে। আল আমিন জানায়, ওই এলাকায় ঘুরতে গিয়ে রহমত ও সানিসহ কয়েকজন আমার মোবাইল ফোনটি নিয়ে যায়। রোববার দিনে তাদেরকে আমি ফোন করি আমার মোবাইলটি দিয়ে দিতে। তারা আমার কথা সাড়া দিয়ে বলেছে ইফতারের পর ওই এলাকায় গিয়ে ফোনটি নিয়ে আসতে। ইফতারের পর মোবাইলটি আনতে গেলে তারা আমাদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। পরে এটি সংঘর্ষে রূপ নেয়।
স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর আজাদ হোসেন মজুমদার বলেন, আমাদের দু’ ওয়ার্ডের দু’ কাউন্সিলরের প্রাথমিক তদন্তে যা জেনেছি, সেটি হলো টোরাগড় গ্রামের আল আমিনের মোবাইল ফোনটি কংগাইশ গ্রামের রহমত উল্ল্যাহসহ তারা কয়েকজন রেখে দেয়। ঘটনার দিন তাদের থেকে ফোনটি আনতে গেলে তারা তাদেরকে মারধর করে। পরে বিষয়টি সংঘর্ষে রূপ নেয়।
হাজীগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ হারুনুর রশিদ বলেন, ওই ঘটনায় আমরা আমাদের কাজ চলমান রেখেছি। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে দু’ পক্ষের কেউ এখনো অভিযোগ নিয়ে আসেনি।

12 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন