chandpur report 1962

স্ত্রীকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখায় স্বামীর চোখ তোলার চেষ্টা

বাংলাদেশ মাদ্রাসা বোর্ড অধিদপ্তরের এক কর্মচারীকে শিশুর অসুস্থতার কথা বলে শ্বশুরবাড়িতে এনে ডান চোখ উপড়ে ফেলার অভিযোগ উঠেছে স্ত্রী নুপুর বেগম ও তার পরকীয়া প্রেমিকের বিরুদ্ধে।

স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নেয়া হয়। অবস্থার অবনতি হলে তাকে পাঠানো হয় বরিশাল আই হসপিটালে।

বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) দাশপাড়া ইউনিয়নের দাশপাড়া গ্রামে রাত আটটায় এ ঘটনা ঘটে। মিরাজ একই গ্রামের মোখলেছের ছেলে।

জানা গেছে, মিরাজ হোসেন বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড অধিদপ্তরের অফিস সহায়ক হিসাবে চাকরি করেন। তার একমাত্র অসুস্থ শিশু সন্তান আলিফকে (৭) দেখার জন্য লকডাউনে বাড়িতে আসেন। বৃহস্পতিবার বিকেলে স্ত্রী নুপুর বেগমকে ছেলেকে নিয়ে বাড়িতে আসার জন্য ফোনে জানান।

‘স্ত্রী নূপুর বেগম জানায়, তার ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্টে ৫ লাখ টাকা দিলে তবেই সে শ্বশুর বাড়িতে যাবে।’

আরও জানা গেছে, স্ত্রীকে বাড়িতে নেওয়ার জন্যে ইফতার শেষে রাত আটটার দিকে শ্বশুরবাড়ি পৌঁছান মিরাজ। শ্বশুরের ঘরে ঢুকেই পরকীয়া প্রেমিক হাবিব হোসেনের সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় দেখে ফেলেন স্ত্রীকে।

মুহূর্তের মধ্যে প্রেমিকাকে নিয়ে ঘরের ভিতর মিরাজকে আটকিয়ে ফেলে মারধর করে চুল ধরে টেনে মাটিতে ফেলে চোখ উৎপাটনের চেষ্টা চালায় স্ত্রী নুপুর ও তার পরকীয়া প্রেমিক হাবিব। এতে যোগ দেন শাশুড়ি রেহেনা বেগম। এসময় মিরাজের ডাক চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে বাউফল হাসপাতালে নিয়ে আসে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক তপন কুমার বিশ্বাস জানান, ডান চোখের অবস্থা আশঙ্কাজনক, উন্নত চিকিৎস্যার জন্য বরিশাল আই হসপিটালে পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে নুপুরের বাবা সোহরাব হোসেনের জানান, তার জামাই মেয়ের মধ্যে প্রায়ই ঝগড়া হতো। কিন্তু এরকম দুর্ঘটনা ঘটবে তা তিনি আসা করেননি। স্ত্রী নুপুর বেগমের বক্তব্যের জন্যে চেষ্টা করে পাওয়া যায়নি।

বাউফল থানার ওসি আল মামুন (ভারপ্রাপ্ত) জানান, আহতের বোন অভিযোগ দিয়েছে, অপরাধীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

 

শেয়ার করুন