অনিয়ম

ফরাজীকান্দিতে জন্মসনদে অতিরিক্ত অর্থ আদায়, ইউপি সদস্যকে মারধর

মতলব উত্তর প্রতিনিধি :
মতলব উত্তর উপজেলার ফরাজীকান্দি ইউনিয়ন পরিষদ ডিজিটাল তথ্য সেবা কেন্দ্রের উদ্যোক্তা শাওন হাসনাতের বিরুদ্ধে জন্ম নিবন্ধন সনদ প্রদানে নির্ধারিত ফির বেশি অর্থ আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। প্রতিবাদ করায় মঙ্গলবার (২৫ মে) দুপুরে ইউপি সদস্য সফিকুল ইসলাম পাটোয়ারীকে ইউপি ভবন প্রাঙ্গণে মারধর করা হয়। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও মতলব উত্তর থানায় ১০জন ইউপি সদস্য অভিযোগ দায়ের করেন। তার এ বাণিজ্যে স্থানীয় বাসিন্দা ও সচেতন মহলে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করেন, টাকা ছাড়া উদ্যোক্তা শাওন হাসনাতের কাছ থেকে কেউ জন্ম নিবন্ধন সনদ পান না। এসব জেনেই তিনি ১০০ টাকা নিয়ে এসেছিলেন। কিন্তু উদ্যোক্তা শাওন হাসনাত ৩০০ টাকার কমে জন্ম সনদ না দেওয়ায় পরিচিত একজনের কাছ থেকে আরও ২০০ টাকা ধার করে দিয়েছেন।

স্থানীয় হাসান, সোলাইমান ও আমেনা বেগম’সহ কয়েকজন অভিযোগ করেন, উদ্যোক্তা শাওন হাসনাতের কাছ থেকে ৩০০-৬০০ টাকায় জন্ম সনদ কিনতে হয়। শিক্ষার্থীদের ইউনিক আইডি কার্ড প্রদানের জন্য শিক্ষার্থী, পিতা-মাতা ও অভিভাবকদের জন্মনিবন্ধন অনলাইন করা চাইছেন স্কুলগুলো। এ সুযোগে উদ্যোক্তা শাওন হাসনাত ইউনিয়নের তথ্যসেবা গ্রহণকারীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করছেন এ খবর পেয়ে ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের সদস্য সফিকুল ইসলাম পাটোয়ারী ইউনিয়ন পরিষদ ভবনে গিয়ে শাওনকে জিজ্ঞাসাবাদ করিলে বাকবিতন্ডা হয়। এ সময় অন্যান্য ইউপি সদস্যরাও সফিকুল ইসলাম পাটোয়ারীর সাথে একাত্মতা প্রকাশ করেন। ইউনিয়ন পরিষদ ভবনের মধ্যে ইউপি সদস্য সফিকুল ইসলাম পাটোয়ারীর উপর উদ্যোক্তা শাওন হাসনাতের নেতৃত্বে আত্মীয়-স্বজন ও বহিরাগত লোকজন দিয়ে হামলা করে গুরুত্বর আহত করে।

জানা যায়, জন্ম ও মৃত্যুর দুই বছরের মধ্যে ফি ছাড়াই নিবন্ধন করার নিয়ম রয়েছে। আর দুই বছর পর নিবন্ধনের ক্ষেত্রে প্রতি বছরের জন্য ইউনিয়ন পরিষদে পাঁচ ও সিটি করপোরেশনে ১০ টাকা হারে ফি নেওয়ার বিধান আছে।

ইউপির প্যানেল চেয়ারম্যান আবদুল হালিম সরকার বলেন, জন্ম নিবন্ধন আমার কাজ নয়। সচিব নাছির উদ্দিন খান ও উদ্যোক্তা শাওন হাসনাত অতিরিক্ত অর্থ আদায় করছে।

মতলব উত্তর উপজেলা নির্বাহী অফিসার গাজী শরিফুল হাসান বলেন, জন্ম নিবন্ধনে প্রতি বছরের জন্য ৫ টাকা এবং সনদ খরচ বাবদ আরও ২০ থেকে ৩০ টাকা নেওয়া হয়। একটি সনদে ৩০০-৬০০ টাকা নেওয়ার সুযোগ নেই।

তিনি আরো বলেন, ফরাজীকান্দি ইউনিয়নের ১০জন ইউপি সদস্য উদ্যোক্তা শাওন হাসনাতের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে। তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

8 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন