বিচার চাওয়া-পদত্যাগ করা আব্দুর রহিম কাসেমীও গ্রেপ্তার

হেফাজত ইসলাম কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুফতি আব্দুর রহিম কাসেমীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আজ মঙ্গলবার বিকেলে সদর থানা পুলিশ পৌর এলাকার ভাদুঘর থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে। এর আগে তিনি হেফাজতের তাণ্ডবের বিচার দাবি করে সাংগঠনিক পদ থেকে পদত্যাগ করেন।

জেলা পুলিশের বিশেষ শাখা থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আব্দুর রহিম কাসেমীকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। ওই বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, কাসেমী তাণ্ডবের জড়িত ছিলেন বলে পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে। সরকার উৎখাতের ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে তিনি মাদরাসা ছাত্রদের নিয়ে তাণ্ডবের অংশ নেন।

এর আগে আব্দুর রহিম কাসেমী গত ২৩ এপ্রিল শুক্রবার সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেস ক্লাবে পাঠানো এক পত্রে পদত্যাগের কথা জানান। এ সময় তিনি ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা সম্পূর্ণ অস্বীকার করেন। পাশাপাশি তাণ্ডবকারিদের বিচার দাবি করেন।

পদত্যাগ পত্রে তিনি বলেছিলেন, আনুষ্ঠানিকভাবে হেফাজতে ইসলামের সকল কার্যক্রম ও জাতীয় এবং জেলা কমিটির পদসমূহ থেকে পদত্যাগ করছি। যাদের প্ররোচণায় দেশ ও জনগণের জানমালের এবং রাষ্ট্রীয় সম্পদের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে, তাদের চিহ্নিত করে বিচারের আওতায় আনার জন্য সরকার ও প্রশাসনকে বিনীতভাবে অনুরোধ করছি।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বাংলাদেশ সফরের বিরোধিতা করে গত ২৬ থেকে ২৮ মার্চ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার শতাধিক সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে নজিরবিহীন তাণ্ডব চালায় হেফাজতে ইসলামের কর্মী-সমর্থকরা। এ সব ঘটনায় মোট ৫৬টি মামলা দায়ের হয়েছে। এ মামলাগুলোতে আসামি এজহারনামীয় ৪১৪ জন ও অজ্ঞাতনামা ৩৫ হাজারেরও বেশি। এ সব মামলা এ পর্যন্ত প্রায় ৪০০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। (কালের কণ্ঠ)

শেয়ার করুন

অনুমতি ব্যতীত এই সাইটের কোনো সংবাদ, ছবি অন্য কোনো মাধ্যমে প্রকাশ আইনত দণ্ডনীয়