রিকশাওয়ালাকে নির্মমভাবে পিটিয়ে ভাইরাল সেই ‘প্রভাবশালী’ আটক

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এক রিকশাচালককে মারধরের একটি ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর মারধরকারী স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার (০৪ মে) ভিডিওটি ভাইরাল হওয়ার পরই তাকে আটক করা হয়।

জানা যায়, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিডিও ছড়িয়ে পড়ার পর বংশাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম অভিযুক্ত ব্যক্তিকে আটক করে।

জিজ্ঞাসাবাদে আরও জানা যায়, অভিযুক্ত লোকটির নাম সুলতান আহমেদ। তিনি ওই এলাকার স্থানীয় বাড়িওয়ালা এবং প্রভাবশালী। তার বিরুদ্ধে উপযুক্ত আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে বলে জানায় পুলিশ।

ভিডিওটি কে বা কারা সর্বপ্রথম সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট করে তা জানা না গেলেও একাধিক ফেসবুক আইডি থেকে পোস্ট করার পর তা নিয়ে আলোচনা শুরু হয় ফেসবুকে।

অনলাইনে নাগরিকরা ভিডিওটির নিচে নানাবিধ কমেন্ট করেন। যেখানে ফুটে উঠেছে সামাজিক শ্রেণী-বিদ্বেষের প্রতি চরম ক্ষোভ। পলাশ মাহমুদ নামে একজন ফেসবুকে ভিডিওটি পোস্ট করে লিখেন- ‘লোকটি কি বেঁচে আছেন? রোজার মধ্যে এ কেমন নির্মমতা? গরিবের ওপর ধনীর ক্ষমতা দেখানো, দুর্বলের ওপর সবলের অত্যাচার; এভাবে কতদিন চলবে?’

কাজী শামীম হাসান নামে একজন লিখেন, ‘সবাই ভাবতেছিল লোকটা স্থানীয় নেতা। প্রতিবাদ করে আবার কোন বিপদে পড়ে। মানুষ প্রতিবাদ করতে ভয় পায় এখন, কারণ, খুব বড় ধরনের কিছু না হলে প্রতিবাদকারীরই বিপদ হয়। এর কারণ, আইনের শাসনের অভাব।’

এমডি নাজমুল মিয়া লিখেন, ‘পুলিশ ভাইদেরকে অনুরোধ করিতেছি যে, এই গরিবের ঘায়ে যারা হাত তুলেছে, তাদেরকে, আইনের আওতায় আনা হোক।’

রিকশার যাত্রী থামানোর চেষ্টা করলে তার দিকেও তেড়ে যান সুলতান

রিকশাচালককে মারধরের ঘটনার ভিডিও ধারণ করেন সাংবাদিক লিটন মাহমুদ (ইনসেটে)
রাজধানীর বংশালে এক রিকশাচালককে মারধর করার পর পুলিশের হাতে আটক হয়েছেন সুলতান আহমেদ নামে এক ব্যক্তি। তিনি ওই চালককে মারধর করা সময় ঘটনার ভিডিও ধারণ করেন ডিবিসি টেলিভিশনের নিজস্ব প্রতিবেদক লিটন মাহমুদ। মূলত ওই ভিডিও ছড়ানোর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই সুলতানকে আটক করা হয়।

আসলে সে সময় কী ঘটেছিল, সে বিষয়ে কথা বলেছেন সাংবাদিক লিটন মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘মঙ্গলবার (৪ মে) বেলা দেড়টার দিকে বংশাল থানা আওয়ামী লীগ আয়োজিত দুস্থদের মাঝে খাদ্য বিতরণ অনুষ্ঠান কাভার করতে যাচ্ছিলাম। পথিমধ্যে বংশাল মোড়ে (রোকনউদ্দিন জামে মসজিদের একটু সামনে) যানজটের মধ্যে হঠাৎ ওই ব্যক্তি (সুলতান আহমেদ) বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে রিকশাচালকে মারধর শুরু করেন। রিকশায় থাকা যাত্রী তাকে থামানোর চেষ্টা করলে সুলতান তার দিকেও তেড়ে যান।’

লিটন মাহমুদ বলেন, ‘প্রায় ৫-৭ মিনিট ধরে এভাবে রিকশাচালকে মারধর করতে থাকেন সুলতান। এ ঘটনা দেখে আমি মোটরসাইকেল থামিয়ে পকেট থেকে ফোন বের করে ভিডিও ধারণ করি। মারধরের একপর্যায়ে রিকশাচালক আল্লাহর কাছে বিচার চাইলে ওই ব্যক্তি (সুলতান) আরও ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে উপর্যুপরি মারধর করতে থাকেন। মারধরের একপর্যায়ে রিকশাচালক অজ্ঞান হয়ে পড়ে যান। এরপর আশপাশের মানুষ ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি ঘটনাস্থল ত্যাগ করার আগে ওই ব্যক্তি সম্পর্কে আশপাশের দোকানদারকে জিজ্ঞাসা করলে কেউ তার (সুলতান) সম্পর্কে কোনো কিছু বলতে চাইছিল না। পরে ভিডিওটি আমার ফেসবুক ওয়ালে দিলে মুহূর্তের মধ্যে সেটি ভাইরাল হয়ে যায়।’

শেয়ার করুন

অনুমতি ব্যতীত এই সাইটের কোনো সংবাদ, ছবি অন্য কোনো মাধ্যমে প্রকাশ আইনত দণ্ডনীয়