স্বেচ্ছাসেবক লীগ

চাঁদপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন কমিটিতে যারা নেতৃত্ব আসার সম্ভাবনা

স্টাফ রিপোর্টার : দীর্ঘ ১৭ বছর পর নতুন নেতৃত্বে আসছে আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ চাঁদপুর জেলা শাখা। এ নিয়ে নতুন কমিটিতে আসতে নেতাদের প্রস্তুতিও চলছে জোরেশোরে। শুরু হয়েছে পদপ্রত্যাশীদের দৌড়ঝাঁপ। দলীয় সূত্রে জানা যায়, গত ১১ জুন বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ চাঁদপুর জেলার তিন মাসের আহ্বায়ক কমিটি ১৭ বছর পর বিলুপ্ত ঘোষনা করেছে। কেন্দ্রীয় কমিটির দপ্তর সম্পাদক আজিজুল হক আজিজ স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এমন তথ্য জানানো হয়।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, ১৭ বছর ধরে চাঁদপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটি। এমন পরিস্থিতিতে সভাপতি নির্মল রঞ্জন গুহ ও সাধারণ সম্পাদক আফজালুর রহমানের নির্দেশে চাঁদপুর জেলা কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়েছে। স্বেচ্ছাসেবক লীগকে আরো গতিশীল করার লক্ষে অচিরেই নতুন কমিটি গঠন করা হবে বলেও প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

এদিকে এবার নতুন কমিটিতে সংগঠনের জন্য পরিশ্রমী, মেধাবী এবং প্রতিশ্রুতিশীল নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠিত হোক। এমন প্রত্যাশা করছেন সংগঠনের সাবেক ও নতুন কমিটিতে আসা আগ্রহীরা। অন্যদিকে কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করার পর থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও নতুন নেতৃত্বে আসতে লেখালেখি শুরু হয়। অনেকেই সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদ চেয়ে ফেসবুকে দোয়া ও সমর্থন চেয়ে প্রচারণা চালাচ্ছেন।

চাঁদপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন কমিটিতে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে, সভাপতি পদে সংগঠনের সাবেক সদস্য ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা এবং বর্তমান চাঁদপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র অ্যাড. হেলাল হোসাইন, সাবেক কমিটির যুগ্ম আহবায়ক এম এ হাসান লিটন, ফেরদৌস মোরশেদ জুয়েল ও মজিবুর রহমান মজিব এবং শহর ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক অ্যাড. হাবিবুর রহমান লিটু। সাধারণ সম্পাদক পদে রয়েছেন সংগঠনের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক কে এম মাসুদ ও জেলা যুবলীগের সদস্য জাহাঙ্গীর হোসেন বেপারী। তবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এবং দলীয় অনেক নেতা কর্মীদের সাথে আলাপ করে দেখা গেছে, মেধাবী পরিশ্রমী, সাবেক ছাত্রলীগের ত্যাগী নেতা ফেরদৌস মুরশেদ জুয়েল চাঁদপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের নতুন কমিটিতে সভাপতি হিসেবে নেতৃত্বে আসুক এমনটাই অনেকে প্রত্যাশা করছেন।

এ বিষয়ে সভাপতি প্রার্থী ফেরদৌস মোরশেদ জুয়েল বলেন, আমাকে ২০১৯ সালের ২৬ জুলাই কেন্দ্রীয় ভাবে কোয়াব করে চাঁদপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহবায়ক করেন। প্রায় দুই বছর চাঁদপুর স্বেচ্ছাসেবক লীগকে গতিশীল করার লক্ষে আহ্বায়ক কমিটির সকলকে সাথে নিয়ে সংগঠনকে শক্তিশালী করার জন্য কাজ করে যাচ্ছি। গত দুবছরে সকল কার্যক্রম করে। যা আগে কখনো করা হয়নি।

সকল নির্বাচনে স্বেচ্ছাসেবক লীগ গুরুত্বপূর্ণ ভাবে দায়িত্ব পালন করেছে। যা বর্তমানে সকলের কাছে প্রশংসা অর্জন করে। আমি সাংগঠনিক দায়িত্ব পেলে এই সংগঠনকে ছাত্র লীগের সাবেক নেতৃত্বে যারা বিভিন্ন কমিটিতে স্থান পায়নি, তাদের সাথে নিয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনা হাতকে শক্তিশালী করার জন্য কাজ করবো। কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগ আমাকে যদি দায়িত্ব দেয়, তাহলে চাঁদপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগকে পুরো দেশের মধ্যে অন্যতম একটি সংগঠনে রূপান্তরিত করবো।

সংগঠনের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক কে এম মাসুদ বলেন, আমি এই কমিটিতে দীর্ঘ ১৭ বছর যুগ্ম আহবায়ক ছিলাম। তবে বড় বিষয় হলো সাংগঠনিক কার্যক্রম না থাকায় রাজনীতিতে কোন তৃপ্তি ছিলো না। আমি নতুন কমিটিতে সাধারণ সম্পাদক পদে আসতে ইচ্ছুক। আশা করি নতুন নেতৃত্বের মাধ্যমে চাঁদপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ সাংগঠনিক ভাবে এগিয়ে যাবে।

 

শেয়ার করুন