ড্রেন দুর্ভোগ

ফরিদগঞ্জে সড়ক ও ড্রেনের কাজের ধীরগতিতে দুর্ভোগ

ফরিদগঞ্জ প্রতিনিধি :
চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ পৌর কাঁচাবাজার রাস্তার ড্রেন নির্মাণ ও কালিরবাজার রাস্তার নির্মাণ কাজ ও পানি সরবরাহের পাইপ লাইন নির্মাণজনিত কারণে চরম দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে পৌরবাসী ও ব্যবসায়ীদের।

একে তো চলমান নির্মাণ কাজের ধীরগতি, অন্যদিকে যোগ হয়েছে টানা বর্ষণ। প্রবল বৃষ্টির কারণে পুরো সড়ক ও বাজার এলাকা খানাখন্দকে একাকার হয়ে পড়েছে।

ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষের বক্তব্য হচ্ছে, নির্মাণ কাজ বর্ষার পূর্বে সম্পন্ন করলে আমাদের এমন দুর্ভোগ পোহাতে হতো না। কাঁচাবাজার তথা উত্তর গলির ব্যবসায়ীরা গত ২০/২৫ দিন যাবৎ বেচা-বিক্রির অসুবিধায় লোকশান গুণতে হচ্ছে। এলাকাবাসীকে বাঁশের সাঁকো দিয়ে ঘরে যাতায়েত করতে হচ্ছে।
সরেজমিনে দেখা গেছে, ফরিদগঞ্জ পৌর বাজার উত্তর গলিতে কাঁচাবাজার, মাছ ও মাংস, মুদি দোকান নিয়মিত বসে। বিগত ৩ সপ্তাহ ধরে ড্রেনের নির্মাণ কাজের জন্যে কাঁচাবাজার সড়কটি সম্পন্ন বন্ধ রয়েছে।

মে মাসের শেষ সপ্তাহে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের অধীনে কাঁচাবাজারে প্রায় আড়াই কোটি টাকা ব্যয়ে ১৪৫০ মিটার ড্রেন নির্মাণ কাজ শুরু হয়। ঠিকাদার কাঁচাবাজার সড়কটি মেশিন দিয়ে মাটি উঠিয়ে কাজ শুরু করলে, এ সময় থেকে বৃষ্টি শুরু হওয়ায় নির্মাণ কাজ খুবাই ধীরগতিতে চলে আসে। এলাকার লোকজনের চরম ভোগান্তির সৃষ্টি হয়।

স্থানীয় অধিবাসী সুবীর সাহা, রিষিকেশ জানান, আমাদের ভোগান্তি স্বচক্ষে না দেখলে কেউ বুঝবে না। বৃষ্টি ও ঠিকাদারের কাজের ধীরগতির কারণে আমরা খুবই দুর্ভোগ পোহাচ্ছি।

স্বর্ণ ব্যবসায়ী দিলীপ কুমার দাস চাঁদপুর রিপোর্টকে বলেন, ড্রেন নির্মাণের জন্য সড়ক কেটে ফেলায় আমাদের কাছে লোকজন আসতে চায় না। ফলে ব্যবসা মন্দা যাচ্ছে।

নির্মাণ কাজ ধীরগতির কারণে পৌর মেয়র ঠিাকাদারের লোকজনকে ঢেকে রাস্তা থেকে মাটি সরিয়ে তারপর নির্মাণ কাজ শুরু করার নির্দেশ দিয়েছেন। ফলে গত ৫ দিন ধরে নির্মাণ কাজ বন্ধ রয়েছে।

পৌর এলাকার জনগুরুত্বপূর্ণ সড়ক থানার মোড় থেকে কালিরবাজার চৌরাস্তা পর্যন্ত ১ কোটি ১৭ লাখ টাকা ব্যয়ে ৮১০ মিটার সড়কটি এলজিইডির অধীনে প্রায় ১ বছর পূর্বে নির্মাণ কাজের ওয়ার্ক অর্ডার দিলেও ঠিকাদার কাজটি শেষ সময়ে শুরু করেন।

কাজের ঠিকাদার হাজী আঃ আজিজ জানান, রাস্তার টেন্ডার সম্পন্ন হওয়ার পর এমপি মহোদয়ের ড্রেন ইনক্লুডের ডিউ লেটারের কারণে কিছুটা বিলম্ব হয়েছে। তবে এখন নিয়মতান্ত্রিভাবেই কাজ চলছে। এরই মধ্যে পৌর এলাকার পানি সরবরাহ প্রকল্পের অধীনে পাইপ লাইন বসানোর কাজ শুরু করায় সড়কের নির্মাণ কাজ স্থবীর হয়ে পড়েছে। কাঁদাপানিতে একাকার হয়ে গেছে সড়কটি। সড়কের দু‘পাশের কয়েকশ’ ব্যবসায়ীও দুর্ভোগে পড়েছে।

চাঁদপুরের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ ইউনূস বিশ^াস জানায়, বর্ষার কারণে সড়কের নির্মাণ কাজে কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। তাছাড়া পানির পাইপ লাইন বসানোর জন্যও কাজের কিছুটা ধীরগতি হতে পারে। তবে আমি ঠিকাদারকে কাজ দ্রæত শেষ করতে নির্দেশ দিয়েছি।

উপজেলা জনস্বাস্থ্য কর্মকর্তা মো: সোহরাব হোসেন জানান, ড্রেনের কাজ স্বভাবিক গতিতেদই চলছিল। পৌর মেয়র ধীরগতি বলে কাজ বন্ধ করে দিতে বাধ্য করে। পরে অবশ্য আবার চালু করতে বলায় এখন কাজ চলছে। টানা বর্ষণের কারণে আমাদের ড্রেন নির্মাণে কিছুটা বেকায়দায় পড়তে হয়েছে।

এ বিষয়ে পৌর মেয়র আবুল খায়ের পাটওয়ারীর মুঠো ফোনে বক্তব্য চাইলে তিনি তেমন কিছু না বলেই ফোন রেখে দেন। তবে কাজের ধীরগতির কারণে কাজ বন্ধ রাখার সত্যতা স্বীকার করেন।

শেয়ার করুন