সদর হাসপাতাল Chandpur sadar hospital

চাঁদপুর আড়াইশ শয্যা হাসপাতাল পুরোটাকেই করোনা ইউনিট করার প্রস্তাবনা

নিজস্ব প্রতিবেদক :
২৫০ শয্যা বিশিষ্ট চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতাল পুরোটাকেই করোনা ইউনিট করা হবে বলে জানান চাঁদপুরের সিভিল সার্জন ডাক্তার মো. সাখাওয়াত উল্যাহ । সোমবার দুপরে তিনি মুঠোফোনে এ কথা বলেন।

সিভিল সার্জন ডাক্তার মো. সাখাওয়াত উল্যাহ বলেন, চাঁদপুরে করোনার অবস্থা ভালো নয়। প্রতিদিন দেড়’শর উপরে লোকের করোনা শনাক্ত হচ্ছে। গড়ে প্রতিদিন ২ থেকে আড়াইশ লোক করোনা উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে। তবে সেই অনুযায়ী লোকবল যত সামান্য। একদিকে জনবল সংকট অন্যদিকে তরল অক্সিজেনের সংকট। সব মিলিয়ে কঠিন পরিস্থিতি পার করছে চাঁদপুর সদর হাসপাতালের চিকিৎসকরা।

তিনি বলেন রোগী বাড়তে থাকায় চাঁদপুর সদর হাসপাতালের ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালটিকে পুরোটাই করোনা ইউনিট করার সিদ্ধান্তের কথা বলা হয়েছে। তবে সেটি এখনো সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি। দ্রুত আলোচনা স্বাপেক্ষে এসব বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের জরুরি সভায় এ বিষয়ে প্রাথমিক আলোচনা হয়েছে, তবে অন্যান্য রোগীদের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়ার পরেই এ ব্যাপারে বিস্তারিত পরে জানানো হবে।

ডাক্তার মো. সাখাওয়াত উল্যাহ্ বলেন, চাঁদপুর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে ১৫০ সীটকে করোনা ইউনিট করা হয়েছে। তবে রোগীর চাপ থাকায় ডাক্তার ও নার্সের সংকট রয়েছে। তাই নতুন করে ডাক্তার ও নার্স চাওয়া হয়েছে।

ডাক্তার মো. সাখাওয়াত উল্যাহ্ বলেন, চাঁদপুর সদর হাসপাতালে অক্সিজেনের চরম সংকট রয়েছে। আবুল খায়ের গ্রুপ যত সামান্য অক্সিজেন সাপ্লাই দিচ্ছে। যে পর্যন্ত চাঁদপুরের অক্সিজেন প্লান্ট চালু হবেনা সেই পর্যন্ত অক্সিজেনের চাহিদা পূরণ হবেনা।

তিনি বলেন, আবুল খায়ের গ্রুপের লোকজন হাসপাতালে আছে। তারা বলছে দ্রুতই অক্সিজেন প্লান্ট চাল হবে।

উল্লেখ্য, ২৫ জুলাই রোববার চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ৮ জন মারা গেছেন। এর মধ্যে করোনা পজিটিভ ৪ জন, আর করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন ৪ জন।

13 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন