বালু উত্তোলন রিপোর্ট

ফরিদগঞ্জে অবৈধ ড্রেজার দিয়ে বালি উত্তোলন চলছে

নিজস্ব প্রতিবেদক :
চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে লকডাউনের সুযোগে অবৈধ ড্রেজার দিয়ে বালি উত্তোলনের হিড়িক পড়েছে। ফরিদগঞ্জ দক্ষিণ ইউনিয়নে ৩টি স্থানে,গোবিন্দপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের ৩ টি স্থানে গোবিন্দপুর উত্তর ইউনিয়নে ৩টি স্থানে, চরদুঃখিয়া পুর্ব ইউনিয়নের আলোনিয়া গুদারাঘাট এলাকায় ১টিসহ মোট ১০টি ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালি উত্তোলন চলছে। ফসল উৎপাদন ঠিক রাখতে আবাদি জমি ভরাটের নিষেধাজ্ঞা থাকলেও তা’ কেউ মানছে না। ইতিমধ্যে উপজেলা প্রশাসন বিভিন্ন স্থানে ড্রেজার বিনষ্ট করলেও চলমান সর্বাত্মক লকডাউনের সুযোগে আবারো বালি উত্তোলন শুরু করেছে।

উপজেলার ১৪ নং ফরিদগঞ্জ দক্ষিণ ইউনিয়নে ২টি স্থানে ড্রেজার দিয়ে ফসলি জমি থেকে বালি উত্তোলন করে ফসলি জমি ভরাট করছে। কালিবাজার-মদিনা বাজার সড়কে মধ্যহর্ণি এলাকায় জনৈক মাহফুজ পাটওয়ারী ও জসিম উদ্দিন অবৈধভাবে ফসলি জমি ভরাট করছে। একই ইউনিয়নের তালতলা পশ্চিম রোডে কালাম মাস্টার বাড়ির কালভার্ট সংলগ্ন জনৈক ইউছুফ হোসেন ড্রেজার দিয়ে বালি উত্তোলন করছে।

১০ নং গোবিন্দপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডে হাঁসা ফতেহ আলী পাটোওয়ারী বাড়ি সংলগ্ন ও হাঁসা মাদ্রাসার সাথে আব্দুল মান্নান ও লতিফ বেপারীর ২টি অবৈধ ড্রেজার চলছে গত ৩ মাস ধরে।প্রশাসন ইতিপুর্বে ড্রেজারের পাইপ ভেঙ্গে দিয়ে আসলেও কিছুদিন পর থেকে আবারো ড্রেজারগুলো চলছে। একই ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডে প্রয়াত রুহুল আমিন মেম্বারের বাড়ির পাশেও চলছে অবৈধ ড্রেজিং।কোনভাবেই যেন অবৈধ ড্রেজার দিয়ে মাটি উত্তোলণ বন্ধের লাগাম টেনে ধরতে পারছেনা প্রশাসন।

সহকারী কমিশনার (ভূমি) সারমিন আক্তার জানান, অবৈধ ড্রেজারের বিরুদ্ধে মোবাইল কোট দিয়ে মেশিন ভেঙ্গে দেওয়া ও পাইপ কেটে ফেলাসহ জরিমানা অব্যাহত রয়েছে। বেপরোয়া হলে আবারও এদের বিরুদ্ধে অচিরেই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ইউএনও শিউলী হরি জানান, অবৈধ ডেজারগুলো বন্ধ করার অভিযান অব্যাহত রয়েছে। এসিল্যান্ডকে আবারও বলবো ব্যবস্থা নিতে।

19 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন