বিভাগ

ফেইসবুকে ভাইরাল, আসলেই কি কুমিল্লা বিভাগ ঘোষণা হয়েছে?

মিজানুর রহমান রানা : কুমিল্লা বিভাগ  নিয়ে গত দু’তিন দিন যাবত বেশ মাতামাতি হচ্ছে। অনেকেরেই টাইমলাইনে বিষয়টি ঘুরপাক খাচ্ছে। বিষয়টি রীতিমতো ভাইরাল। মানুষ বুঝে না বুঝে কেবল শেয়ার করছে। বিষয়টি কি?

১৯৬০ সালে স্বতন্ত্র জেলার মর্যাদা পায় কুমিল্লা। দেশের অন্যতম প্রাচীন এ জেলায় ৬২ লাখের বেশি মানুষের বাস।রাজনীতি, অর্থনীতি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য কোনো কিছুতেই পিছিয়ে নেই কুমিল্লার মানুষ। তবুও কেন কুমিল্লাকে বিভাগ করা হবে না? এমনই প্রশ্ন জেলার সচেতন ও বিশিষ্ট ব্যক্তিদের মনে। কুমিল্লা বিভাগ হওয়া এবং না হওয়া নিয়ে চায়ের দোকানে, স্কুল-কলেজে, পাড়া মহল্লায় মানুষের সাথে কথা চলছে।

কথা হয় ভিক্টোরিয়া কলেজের ছাত্র আহসান কবীর সাথে তিনি বলেন, দেশের নবম বিভাগ হচ্ছে কুমিল্লা, আইনমন্ত্রী কুমিল্লা এসেই বলেছেন, কুমিল্লা বিভাগ হওয়ার সিদ্ধান্ত এবং সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়ে গেছে। এখন ঘোষণার অপেক্ষায় কুমিল্লা বিভাগ। আইনমন্ত্রী কি মিথ্যা বলবেন ভাই?

কুমিল্লা ইবনে তাইমিয়া স্কুলের নবম শ্রেণী ছাত্র রায়হান বলেন, দীর্ঘ আন্দোলন-সংগ্রাম অবশেষে সফলতার পথে।মাননীয় প্রধানমন্ত্রীও বছরখানেক পূর্বে “কুমিল্লা বিভাগ” বাস্তবায়নের ঘোষণা দিয়েছেন। আমরা আশায় বুক বেঁধেছি।কিন্তু এখন নতুন করে আরেক ঝামেলা শুরু হয়েছে। এখন কুমিল্লা বাদ দিয়ে নতুন বিভাগের নাম ‘ময়নামতি’ করার কথা হচ্ছে। আমি এ সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানাই।

বর্তমানে বাংলাদেশের মোট প্রশাসনিক বিভাগের সংখ্যা আটটি। এর মধ্যে সবচেয়ে নবীন ময়মনসিংহ বিভাগ।২০১৫ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর ঢাকা বিভাগের চারটি জেলা- জামালপুর, শেরপুর, ময়মনসিংহ ও নেত্রকোনা নিয়ে নবীনতম বিভাগটি গঠিত হয়।

২০১৫ সালের ২৬ জানুয়ারী মন্ত্রীসভার বৈঠকে নতুন দুটি বিভাগের অনুমোদন করা হয়েছে। এর একটি ফরিদপুর- যা ঢাকা বিভাগের পাঁচটি জেলা নিয়ে গঠিত হওয়ার কথা। আর অন্যটি কুমিল্লা- যা চট্টগ্রাম বিভাগের কুমিল্লা, বি-বাড়িয়া, চাঁদপুর, ফেনী, লক্ষ্মীপুর ও নোয়াখালী – এ ছয়টি জেলা নিয়ে গঠিত হওয়ার কথা। এ জেলাগুলোর মধ্যে ভৌগোলিক অবস্থান এবং ঐতিহাসিক গুরুত্ব বিবেচনায় কুমিল্লা জেলারই অধিকার সবচেয়ে বেশি। এতোদিন ধরে আলোচনার টেবিলে কুমিল্লা নামটি থাকলেও হঠাৎ করে ময়নামতি নাম কেন আসলো?

আমরা কুমিল্লা বিভাগের দ্রুত বাস্তবায়ন চাই। গোমতী, ময়নামতি কিংবা সমতট তো কুমিল্লারই একটা অংশ। ছোট্ট একটা ইউনিয়নের নামে যদি বিভাগের নামকরণ হতে পারে, তবে প্রাচীন ও সমৃদ্ধ জেলার নামে কেন নয়?

বিষয়টি হচ্ছে কুমিল্লা বিভাগ হচ্ছে। মূলত নির্ভরযোগ্য কোনো সূত্র থেকে বিষয়টি সঠিক বলে পাওয়া যায়নি। সরকারি কোনো ঘোষণা সাম্প্রতিক হয়নি। তবে বিষয়টি প্রস্তাবিত।

কুমিল্লা বিভাগ বাংলাদেশের মধ্য-পূর্বাঞ্চলের প্রস্তাবিত একটি বিভাগ। কুমিল্লা বিভাগের সদরদপ্তর কুমিল্লা শহরে অবস্থিত।

প্রস্তাবিত এই বিভাগ নোয়াখালী, ফেনী, লক্ষ্মীপুর, কুমিল্লা, চাঁদপুর এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা নিয়ে গঠিত হবে। এটি দেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় অঞ্চলের মোট ১২,৮৪৮.৫৩ কিমি২ (৪,৯৬০.৮৫ মা২)এবং ২০১১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী ১,৬৭,০৮,০০০ জনসংখ্যা নিয়ে গঠিত।

প্রস্তাবিত কুমিল্লা বিভাগের ভৌগোলিক ও রাজনৈতিক অঞ্চলকে বর্ণনা করার জন্য ভিন্ন ভিন্ন শব্দ ব্যবহার করা হয়। যেমন:

ভৌগোলিক শব্দসমূহ:

ময়নামতি: ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে কুমিল্লা অঞ্চলের প্রাচীন ধ্বংসাবশেষ ময়নামতির নামানুসারে বিভাগের নাম “ময়নামতি” করার ঘোষণা দেওয়া হয়। তবে এই নামকরণের বিরুদ্ধে কুমিল্লা শহরে বিক্ষোভ সংঘটিত হয়।

সমতট: একটি প্রাচীন রাজ্য ছিল। বৃহত্তর কুমিল্লা অঞ্চল এবং বৃহত্তর নোয়াখালী অঞ্চল সমতট রাজ্যের অন্তর্গত ছিল। ভৌগোলিকভাবে প্রস্তাবিত বিভাগটি দুটি স্বতন্ত্র সাংস্কৃতিক অঞ্চল দ্বারা গঠিত – বৃহত্তর কুমিল্লা এবং বৃহত্তর নোয়াখালী।

বৃহত্তর কুমিল্লা: ১৭৯০ সালে ব্রিটিশদের দ্বারা বঙ্গের একটি জেলা ত্রিপুরা হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয় এবং পরবর্তীতে ১৯৬০ সালে কুমিল্লা নামে নামকরণ করা হয়। এতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও চাঁদপুরের অংশবিশেষ অন্তর্গত ছিল যা ১৯৮৪ সালে পৃথক জেলা হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করে।

বৃহত্তর নোয়াখালী; নোয়াখালীর প্রাচীন নাম ভুলুয়া। নোয়াখালী জেলাটি ১৭৮৭ সালে ব্রিটিশ ভারত সরকার কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এতে লক্ষ্মীপুর ও ফেনীর অংশবিশেষ অন্তর্ভুক্ত ছিল যা ১৯৮৪ সালে পৃথক জেলা হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করে।

রোশনাবাদ; সুবাহ বাংলার মুঘল আমলে এ এলাকা রোশনাবাদ এলাকা নামে সুপরিচিত ছিল।
ত্রিপুরা; প্রস্তাবিত কুমিল্লা বিভাগটি ১৭৬৫ সালে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির অধীনে একটি জেলা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।

প্রস্তাবিত কুমিল্লা বিভাগ অর্থাৎ বৃহত্তর কুমিল্লা ও নোয়াখালী অঞ্চল সমতট নামক প্রাচীন রাজ্যের অধীনে ছিল। কুমিল্লা পৌরসভা গঠিত হয় ১৮৯০ সালে সিটি কর্পোরেশন হয় ২০১১ সালে। এইটি প্রাচীন শহর ।

প্রশাসনিক জেলা : এই বিভাগটি ছয়টি জেলা এবং ৫৯টি উপজেলা (উপজেলা) নিয়ে গঠিত হবে।

তবে সাম্প্রতিকভাবে ফেইসবুকে যেভাবে প্রচারণা চলছে, তা নিয়ে এ পর্যন্ত সরকারি কোনো ঘোষণা আসেনি।

22 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন