উত্তরে যুবতী

মতলব উত্তরে ৯ দিন পর মানসিক ভারসাম্যহীন যুবতিকে ফিরে পেল পরিবার

গোলাম নবী খোকন : ইউএনওর  মহানুভবতায় মতলব উত্তরে ৯ দিন পর মানসিক ভারসাম্যহীন যুবতিকে ফিরে পেল পরিবার।

জানা যায়, চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার ষাটনল লঞ্চ ঘাটে ঈদের দিন এক ভারসাম্যহীন যুবতি মেয়ে অবস্থান করে। এখানে ২/৩ দিন থাকার পর ২৩ জুলাই ষাটনল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান একেএম শরীফ সরকার এর নির্দেশে ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার শাজান (শাজু), জারুল ইসলাম, তথ্য সেবার উদ্যেক্তা বশির আহম্মেদ, গ্রাম পুলিশ রহিমা বেগম, সুজন, মুছা ও শাহিন মেয়েটিকে উদ্ধার করে ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে আসে, যাতে করে মেয়েটি ক্ষতিগ্রস্ত না হয়।

একানে মেয়েটিকে রীতিমতো খানা, কাপড় চোপড় সহ নিরাপত্তা দিয়ে রাখেন ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার ও গ্রাম পুলিশগণ। এ খবরটি উপজেলা ও থানা প্রশাসন সহ গণমাধ্যম কর্মীরা জানতে পেরে প্রিয় সময়, চাঁদপুর রিপোর্ট ডট কমসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে নিউজ প্রকাশ হলে প্রায় ৮ দিন পরে মেয়েটির অভিভাবকের সন্ধান মিলে।

মেয়েটির বাড়ি নারায়ণগঞ্জের চাষাড়ায়।  মেয়েটির বাবা শাজাহান মিয়া ও সাংবাদিক জুয়েল নামে এক ব্যাক্তি ষাটনল ইউনিয়ন পরিষদে আসলে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান একেএম শরীফ সরকার প্রশাসনের লোকজনকে অবগত করলে, উপজেলা নির্বাহী অফিসার গাজী শরীফুল হাসান,সেনাবাহিনীর সদস্য মোঃ মোকলেছুর রহমান, ওসি শাজান কামাল, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মাসুদ ঘটনাস্থলে এসে কাগজে লিখিত রেখে মেয়েটিকে তার বাবার কাছে হস্তান্তর করেন।

এ সময় ইউপি চেয়ারম্যান একেএম শরীফ সরকার, সাংবাদিক আলামিন পারভেজ, বোরহান উদ্দিন ডালিম, ইসলাম মনিরুল ইসলাম মনির, শফিকুল ইসলাম রানা সহ আর ও অন্যান্য সংবাদ কর্মী উপস্থিত ছিলেন।

মেয়েটির নাম নুরুননাহার। মায়ের নাম হালিমা বেগম। মেয়েটির মাকে তার বাবা ডিভোর্স দিয়ে দেয়। তারপর মেয়েটির মায়ের অন্য জায়গায় বিয়ে হয়। যিনি মেয়েটিকে উদ্ধার করে নিলেন তার দ্বিতীয় বাবা শাজাহান। মেয়েটিও বিবাহিতা, স্বামীর সংসারে মাস তিনেক সংসার করার পর তার স্বামী তাকে ডিভোর্স দিয়ে দেয়। মেয়েটির মাও মানসিক সমস্যায় ভুগছেন।

ষাটনল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, মেম্বার ও গ্রাম পুলিশ এই মেয়েটির জন্য যে মানবতা দেখিয়েছে, তার জন্য বিভিন্ন মহল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্যদের সাধুবাদ জানান।

22 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন