817

শাহরাস্তিতে রাস্তায় পড়ে থাকা করোনায় মৃতদেহ খাটে তুললেন ফারুক দর্জি

মোঃ কামরুজ্জামান সেন্টুঃ
চাঁদপুরের শাহরাস্তিতে করোনায় মৃত্যুর পর অটোরিক্সা হতে রাস্তায় নামিয়ে দিলে পড়ে থাকা ওই মৃতদেহ খাটে তুললেন টামটা উত্তর ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক দর্জি। সংক্রমণের ভয়ে কেউ এগিয়ে না আসায় দায়িত্ব নিয়ে মৃতদেহ হস্তান্তর করলেন নিহতের পরিবারের কাছে।

রোববার (২৫ জুলাই) দুপুরে উপজেলার টামটা উত্তর ইউপির রাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানায়, ওইদিন সকালে পার্শ্ববর্তী হাজীগঞ্জ উপজেলার হাটিলা পূর্ব ইউনিয়নের বেলঘর গ্রামের আঃ আজিজের পুত্র ওয়ালী উল্যাহ করোনা উপসর্গ নিয়ে স্থানীয় একটি প্রাইভেট ক্লিনিকে যায়। সেখানে পরীক্ষা-নীরিক্ষা করে তাঁর অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় দ্রুত সরকারি হাসপাতালে নেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়।

সাথে থাকা ভাতিজা সাব্বির (১০) তাঁকে নিয়ে অটোরিক্সা যোগে হাসপাতালে যাওয়ার পথে বেলা সাড়ে ১১টায় শাহরাস্তির টামটা উত্তর ইউনিয়নের রাড়া গ্রামের বাইতুস-সুজুদ মসজিদের কাছে তাঁর মৃত্যু হয়। ঘটনার আকস্মিকতায় অটোচালক মসজিদ সংলগ্ন রাস্তায় নিহতের লাশ নামিয়ে দেয়। করোনায় মৃত্যু হওয়ায় লাশের কাছে যাচ্ছিলেন না কেউ। সংবাদ পেয়ে টামটা উত্তর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক দর্জি স্থানীয়দের সহায়তায় ওই মৃতদেহ খাটে তোলেন। পরে একটি পিকআপ ভ্যানের মাধ্যমে মৃতদেহ নিহতের স্বজনদের বুঝিয়ে দেন।816
হাটিলা পূর্ব ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক মোঃ রাসেল মজুমদার জানান, মৃত ব্যক্তি এলাকায় ওয়ালী উল্যাহ হুজুর নামে পরিচিত।

তাঁর ১কন্যা ও ৪ পুত্র সন্তান রয়েছে।

টামটা উত্তর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক দর্জি জানান, অটো চালক মৃতদেহ রাস্তায় নামিয়ে দিলেও ফেলে চলে যাননি। মৃতদেহ মাটিতে পড়ে থাকাটা বেমানান তাই কয়েকজনকে দিয়ে একটা খাটিয়া এনে একজন ইমাম সাহেবের উপস্থিতিতে লাশ খাটে তুলে রাখি। মৃতদেহ খাটে তুলতে সবাইকে সাহস দেয়ার জন্য নিজে সহযোগিতা করি। তিনি আরও জানান, বৈশ্বিক পরিস্থিতিতে করোনা আমাদের অনেক শিক্ষা দিয়ে যাচ্ছে। সংক্রমণের ভয়ে আমরা মানবিক দায়িত্ব হতে পিছিয়ে পড়ছি।

স্থানীয়রা জানান, মোহাম্মদ ওমর ফারুক দর্জি করোনা পরিস্থিতিতে ব্যাপক কাজ করে যাচ্ছেন। ইতোপূর্বে তিনি করোনায় মৃত ব্যক্তির লাশ দাফন করতে গিয়ে নিজেও করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

21 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন