chandpur report 753

ফরিদগঞ্জে তুচ্ছ ঘটনায় কেন্দ্র করে হামলায় আহত ২

ফরিদগঞ্জ সংবাদদাতা :

চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে ১৪ নং ফরিদগঞ্জ (দক্ষিন) ইউনিয়নের হনীদূর্গাপুর পাটওয়ারী বাড়ীর সামনে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মারামারির ঘটনা ঘটে।

মঙ্গলবার দুপুরে হর্নীদূর্গাপুর পাটওয়ারী বাড়ির সামনে একই এলাকার মাহফুজ পাটওয়ারী,আনোয়ার পাটওয়ারী সাথে প্রতিপক্ষ আকবর পাটওয়ারী ও আতিক পাটওয়ারীর, ইদ্রিস পাটওয়ারী ওরফে ( মিষ্টার) , নাছির পাটওয়াররীর কথা কাটাকাটির এক পর্যায় মারামারি হয়। এতে মাহফুজ পাটওয়ারী (৪৫) ও আনোয়ার পাটওয়ারী (৪০) আহত হয়। আশপাশের লোকজন এসে তাদেরকে উদ্ধার করে চাঁদপুর সরকারী হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়।

ঘটনার বিবরণে জানাযায়, ইদ্রিস ওরপে মিষ্টার পাটওয়ারীকে নিয়ে মাহফুজ পাওয়ারী ঠাট্্রা করলে উভয়ের মাঝে হাতাহাতি হয়। এ সময় মিষ্টার একই বাড়ির আবুল হোসেন বাবুল পাটওয়ারীর নিকট বিচার চায়। বাবুল পাটওয়ারী বিচার করবেন বলে কালক্ষেপন করায় পুন:রায় মঙ্গলবার উক্ত বিষয় নিয়ে আবরও বিচার চাইতে আসেন মাহফুজ ও আনোয়ার হোসেন টিটু। বিচার চেয়ে বাবুল পাটওয়ারীর বাড়ি থেকে বের হলে ইদ্রিস হোসেন মিষ্টার , আতিক হোসেন , আকবর হোসেন , নাছির পাটওয়ালী ও রাছেল হোসেন ক্ষিপ্ত হয়ে হামলা করলে মাহফুজ ও আনোয়ার আহত হয়।

হামলার স্বীকার আনোয়া হোসেন টিটুু বলেন, ইদ্রিস হোসেন মিষ্টারের সাথে কথা কাটাকাটির জের ধরে এক পর্যায় মিষ্টার অকথ্য ভাষায় গালমন্দ শুরু করলে বিষয়টি নিয়ে একই বাড়ির বাবুল পাটওয়ারীর নিকট অভিয়োগ করায় তারা আমাদের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে দা , চেনা ও লাঠি দিয়ে আমাদের উপর হামলা চালায়।

এ বিষয়ে আকবর হোসেন বলেন, আমার ভাইকে প্রায় সময়ই উত্যক্ত করে থাকে। গত সোমবার একই কায়দায় তাকে উত্যক্ত করাকে কেন্দ্র করে উল্টো আমার ভাইকে মিষ্টারকে মারধর করে এ বিষয়ে বাবুল পাটওয়ারীর কাছে অভিযোগ করলে তিনি কালক্ষেপ করে মিমাংশা না করায় পুনরায় মঙ্গলবার দুপুরে তারা আমাদের উপর হামলা করলে আমারা প্রতিহত করতে গেলে তাদের আঘাতেই তারা আহত হয়।

ঘটনার বিষয়ে আতিক হোসেন জানান, আমি ঘটনাস্থলে ছিলাম কিন্তু আমি মারামারি করিনি। মারামারি না করলে জখম হলো কি করে ? প্রশ্নের জবাবে নিরব থাকেন।

এ বিষয়ে এলাকার আবুল হোসেন বাবুল পাটওয়ারী জানান, আমার কাছে সোমবার বিচার চায়। আমি সোমবারে সময় না পাওয়ায় পুন:রায় মঙ্গলবারে আনোয়া হোসেন (টিপু) ও মাহফুজ পাটওয়ারী বিচার চাইতে আসালে আমি আকরকে ডেকে পরে বিচার করবো বলে জানিয়ে দিয়ে নামাজ পড়তে চলে যাই। কিছুক্ষন পরেই চিৎকার শুনে দৌঁড়ে এসে দেখতে পাই মাহফুজ ও আনোয়ার হোসেন (টিপু)‘র আহত হয়ে পড়ে আছে। তুচ্ছ এ সামান্য ঘটনায় একই বাড়ির রক্তের সর্ম্পকের লোকজনের মধ্যে এত বড় রক্তাক্ত সংঘাত অবাক করার মতো। করোই ধর্য্য ছিল না । তার পরেও আমি মিমাংসা করার প্রত্যাশা ব্যক্ত করছ্ ি।

এ বিষয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ সহিদ হোসেন জানান, ঘটনার বিষয়ে আমার কাছে লিখিত অভিযোগ এলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

53 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন