হাবিব হত্যা রহস্য উন্মোচন report

ফরিদগঞ্জে হাবিব হত্যা রহস্য উন্মোচন, আটক ৫

ফরিদগঞ্জ সংবাদদাতা :
চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে গলাকাটা লাশ উদ্ধারের ৪৮ ঘন্টার মধ্যে খুন হওয়া যুবক হাবিব হত্যার রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ। পরকীয়া প্রেমের বিরোধে খুন হয় হাবিব।

১১ আগষ্ট বুধবার দুপুরে ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশ প্রেস কনফারেন্সে এ তথ্য জানিয়েছে। খুনের সাথে জড়িত থাকার ঘটনায় এক প্রবাসীর স্ত্রী সহ ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সোহেল মাহমুদ জানান, প্রাথমিক তদন্তে নিশ্চিত হওয়া গেছে, পরকীয়া প্রেম ঘটিত বিরোধে খুন হয়েছে হাবিব। উপজেলার ফরিদগঞ্জ দক্ষিন ইউনিয়নের হর্নিদূর্গাপুর গ্রামের কুয়েত প্রবাসী ফারূক হোসেন এর স্ত্রী তানিয়া আক্তার শিউলীর সাথে হাবীব(২৫), রুবেল (৩০) ও সিফাত উল্যা, রাসেল(২৬) এর সাথে দীর্ঘদিন পরকিয়া প্রেম চলে আসছিল। প্রেমকে কেন্দ্র করে হাবিবের সাথে রুবেল ও রাসেলের বিরোধ সৃষ্টি হয় এবং রুবেল তাদের শিউলির জীবন থেকে দূরে সরে যেতে হুমকি দেয়।

এই ঘটনার জেরধরে, ৪ আগস্ট রোববার রাতে গুপ্তের বিল এলাকায় হাবিবকে ফোন করে ডেকে আনে রুবেল। সেখানে পূর্ব পরিকল্পনা অনুসারে ওৎ পেতে থাকে রুবেলের আরো তিন সহযোগী সাইফুল (৩৩), সিফাত উল্যা , রাসেল (২৭) ও পারভেজ হোসেন শ্যামল (২৬)। ঘটনাস্থলে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে হাবিবকে পেছন থেকে গলায় নাইলনের রশি পেঁচিয়ে ধরে সাইফুল, রাসেল ও শ্যামল দুই হাত ধরে এবং রুবেল পা ধরে মাটিতে পেলে শ^াস রোধ করে হত্যা নিশ্চিত করে ।

মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পরে লাশ পাশে গুপ্তের বিলে পেলে দেয়। অতঃপর হাবিবের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন ও হত্যার কাজে ব্যবহার করা লাইলনের রশি রুবেল পরকিয়া প্রেমিকা তানিয়া আক্তার শিউলীর বাড়ির সামনে খালে পেলে দেয়। রুবেল রাতেই প্রেমিকা তানিয়া আক্তার শিউলীর সাথে দেখা করে হাবিব হত্যার বিষয়ে তাকে অবগত করে আত্মগোনের জন্য ঢাকায় চলে যায়।

এরপর ৮ আগষ্ট রোববার দুপুরে গুপ্তের বিলে স্থানীয় দুইটি শিশু কচুর লতি খুঁজতে গিয়ে অর্ধ গলিত লাশ দেখতে পায়। পরে স্থানীয়রা থানা পুলিশকে অবহিত করে।

Night King Sex Update
বিজ্ঞাপণ

পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে অনুসন্ধানে নামে এবং হাবিবের মোবাইল ফোনের কল লিস্টের সূত্র ধরে প্রথমে প্রবাসীর স্ত্রী তানিয়া আক্তার শিউলিকে জিজ্ঞাসা করলে তার দেওয়া তথ্য মতে ঢাকার উত্তরা থেকে আসামী রুবেলকে আটক করে। এরপর রুবেলের দেওয়া তথ্যমতে অপর তিন আসামীকে এলাকা থেকে আটক করা হয়। আসামীদের আটকের পর তাদের দেওয়া তথ্যমতে ওই খাল থেকে পুলিশ মোবাইল ফোনটি উদ্ধার করে ।

এ সময় প্রেস করফানেন্সে উপস্থিত ছিলেন, ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ শহীদ হোসন, তদন্ত (ওসি) বাহার মিয়া, এসআই জামাল হোসেন, রুবেল ফরাজি ।

150 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন