কাঁশারা মাদ্রাসা

ফরিদগঞ্জ কাঁশারা মাদ্রাসার নিয়োগে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ

বিশেষ প্রতিনিধি :
চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ কাঁশারা সিদ্দিকীয়া দাখিল মাদ্রাসার ৩টি পদে নিয়োগে অনিয়ম, দুর্নীতিসহ ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগ উঠছে।

এ ব্যাপারে শনিবার (২৬ জুন) নিয়োগ বাতিলের দাবীতে মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের মহাপরিচালক, দুর্নীতি দমন কমিশন, চাঁদপুর জেলা প্রশাসক, ফরিদগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বরাবরে লিখিত অভিযোগপত্র দাখিল করেন মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির অভিভাবক সদস্য মোঃ বিল্লাল হোসেন।

অভিযোগ দায়েরের পর থেকে নড়েছড়ে বসেছে মাদ্রাসার সভাপতি মোঃ শহিদুল ইসলাম পাটওয়ারী, নিয়োগ কমিটির অন্যান্য সহযোগীরা।

এ নিয়ে এলাকাবাসীর মাঝে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। সুষ্ঠু নিরপেক্ষ তদন্তের দাবি জানিয়েছে সচেতন মহল।

তাদের দাবি, গত ২৫জুন কাঁশারা সিদ্দিকীয়া দাখিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ, পিয়ন, আয়া এই ৩টি পদে জনবল নিয়োগের পরীক্ষা নেয়া হয়েছে।

অভিযোগ উঠেছে, পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে পাচঁশত/ দুইশত টাকা ব্যাংক ড্রাফট এর মাধ্যমে আবেদন আহবান করা হলেও, অত্র মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শহিদুল ইসলাম পাটওয়ারী ও ভারপ্রাপ্ত সুপার আব্দুল করিমের পছন্দের প্রার্থীদের নিয়োগ দিতে নিয়োগবিধি উপেক্ষা করে নানা অসাধু উপায় অবলম্বন করেন। আর স্থানীয়ভাবে সুযোগ থাকার পরও পরীক্ষা নেয়া হয়েছে অফিস বন্ধের দিন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের কার্যালয়ে।

এছাড়া অভিযোগকারী বিল্লাল হোসেন বলেন মাদ্রাসার সভাপতি মোঃ শহিদুল ইসলাম পাটোয়ারী কমিটির অন্যান্য সদস্যদের তোয়াক্কা না করে নিয়ম বহির্ভূতভাবে ইন্টারভিউ বোর্ড গঠন করেন। যেমন মাওলানা মোঃ মোশারফ হোসেন আরবি প্রভাষক মান্দারি আলিম মাদ্রাসা চাঁদপুর সদর চাঁদপুর।

তিনি নবম গ্রেডের একজন শিক্ষক, কিন্তু তিনি অন্য উপজেলার নবম গ্রেডের একজন আরবি শিক্ষক হয়ে কীভাবে সপ্তম গ্রেডের একজন সুপারকে প্রশ্ন করার দায়িত্ব দেওয়া হয় এবং নিয়োগ প্রাপ্তদেরকে পরীক্ষার আগ সময়ে প্রশ্ন দেওয়া হলেও তাদের কাছ থেকে উত্তরপত্র নেয়া হয় সবার পরে। ওই দিন জুমার নামাজের দোহাই দিয়ে তড়িঘড়ি করে ৩৫/৪০ মিনিটের মধ্যেই পরীক্ষা শেষ করে ফলাফল জানিয়ে দেন।

এতে উপযুক্ত কয়েকজন প্রার্থী থাকা সত্বেও সাহাপুর দাখিল মাদ্রাসার সহ সুপার মাও: শাহ আলমকে সুপার, এবং মাদ্রাসার সভাপতি মোঃ শহিদুল ইসলাম পাটোয়ারীর স্ত্রী ফারজানাকে আয়া, এবং সভাপতি শহিদুল ইসলামের অন্য একজন আপন লোক সালমান পাটোয়ারীকে পিয়ন পদে নিয়োগে নির্বাচিত করা হয়। যারা প্রত্যেকে সভাপতির এবং ভারপ্রাপ্ত সুপার আঃ করিমের ঘনিষ্ট লোক।

এছাড়া আরও জানা যায়, বর্তমানে নতুন নিয়োগপ্রাপ্ত সুপার মাওলানা শাহ আলম একই উপজেলার সাহাপুর দাখিল মাদ্রাসার নিয়োগপ্রাপ্ত সহ-সুপার হলেও তিনি সেখানে অধ্যবধি কোনরকম রিজাইন না দিয়েই কাঁসারা সিদ্দিকীয়া দাখিল মাদ্রাসায় যোগদান করেছেন এবং অফিসের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন।

কাঁসারা সিদ্দিকীয়া দাখিল মাদ্রাসার (ভারপ্রাপ্ত) সুপার আঃ করিমের সাথে নিয়োগে অনিয়মের বিষয়ে কথা হলে তিনি বলেন, এখানে অনিয়মের কিছুই হয়নি। যা কিছু করা হয়েছে নিয়োগ বোর্ডের সিদ্ধান্তেই করা হয়েছে। সুপার শাহ আলম চাকরি পাইতে ৮ লাখ টাকা ঘুষ লেনদেন করেছেন এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন আমি তা বলতে পারবো না, তবে আমি সেখান থেকে এক কাপ চা ও খাই না।

বিষয়গুলো নিয়ে নতুন নিয়োগপ্রাপ্ত সুপার মাওলানা শাহ আলমের সাথে কথা বলে ঘুষ এবং পরীক্ষার অনিয়মের বিষয়ে প্রশ্ন করলে তিনি সবকিছু নিয়োগ বোর্ডের উপর চাপিয়ে দিয়ে বলেন, এসবের বিষয়ে আমি কোনো উত্তর দিতে রাজি নই। সবকিছুর বিষয়ে নিয়োগবোর্ড জানে।

তবে তিনি স্বীকার করে বলেন, তিনি এখনো সাহাপুর দাখিল মাদ্রাসার সহ-সুপার এবং তিনি কাঁসারা সিদ্দিকীয়া দাখিল মাদ্রাসায় যোগদান করে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে বলে জানান।

সংশ্লিষ্ট এলাকার ইউনিয়ন পরিষদ মেম্বার মাদ্রাসার প্রতিবেশী নজরুল ইসলাম পাটোয়ারী, অত্র মাদ্রাসার ডোনার সদস্য ওবায়েদুর রহমান মিয়াজী, এলাকার বিশিষ্ট আওয়ামী লীগ নেতা সহ আরো কয়েকজন সুশীল সমাজের সাথে নিয়োগে অনিয়মের বিষয়ে কথা হলে তারা বলেন, শুনেছি নিয়োগে বিভিন্ন রকম অনিয়ম হয়েছে এবং এই নিয়োগে টাকা-পয়সার বিনিময়ে হয়েছে শুনেছি। আগামীতে যেন এই নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়ে কোনোরকম যায় ঝামেলা না হয় সেজন্য তারা পরিপূর্ণ তদন্ত সাপেক্ষে এর সমাধান চান।

অন্যদিকে ইন্টারভিউ বোর্ডের সদস্য শিক্ষক প্রতিনিধি মোশাররফ হোসেনের সাথে কথা বলতে গেলে তিনি নিয়োগ প্রক্রিয়ার বিষয়ে কিছু বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন। তবে তিনি বলেন সুপার নিয়োগে ৮ লাখ টাকা লেনদেন হয়েছে এটা এখন এলাকায় শুনতেছি।
ইন্টারভিউ বোর্ডে ইপস্থিত মান্দারী সিনিয়র আলিম মাদ্রাসার প্রভাষক মাওঃ মোশাররফ হোসেনের সাথে কথা হলে বলেন, আমি ইন্টারভিউ বোর্ডের কোন সদস্য ছিলাম না। কাঁশারা ছিদ্দিকীয়া দাখিল মাদ্রাসার সভাপতি শহিদুল ইসলাম পাটওয়ারী আমাকে বারবার অনুরোধ করে ইন্টারভিউ বোর্ডেও অন্যাদের সাম্মতিতে সেখানে রেখেছেন বলে তিনি জানান।

তবে নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ ভিত্তিহীন দাবি করে সভাপতি শহিদুল ইসলাম পাটোয়ারী এই প্রতিনিধিকে বলেন, নিয়ম মেনে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হযছে। তিনি রাজনৈতিক রোষানলের শিকার। মাদ্রাসার উন্নয়ন এবং ভালো ছাড়া কখনও তিনি খারাপ দিক চিন্তা করেন না। তিনি আগামীতে একজন ইউনিয়ন চেয়ারম্যান প্রার্থী। তাকে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্যই তার নামে ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ তুলেছেন বলে তিনি জানান।

এদিকে ইন্টার ভিউ বোর্ডে অন্য উপজেলঅর শিক্ষক নিম্ন কোডধারী মাওঃ মোশাররফ হোসেনকে রাখার বিষয়ে প্রশ্ন করলে তিনি কিছুই জানেন না বলে জানান।

এ বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসার আলী আশ্রাফি রেজাকে বক্তব্য নেওয়ার জন্য একাধিকবার ফোন দিয়েও রিসিভ না করায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

বিষয়টি নিয়ে জেলা শিক্ষা অফিসার মো. গিয়াস উদ্দিন পাটোয়রীর সাথে কথা হলে তিনি বলেন মাদ্রাসা বোর্ড এসব দায়িত্বগুলো জেলা শিক্ষা অফিসারের হাত থেকে নিয়ে নিয়েছেন। এ বিষয় উপজেলা শিক্ষা অফিসারের নিকট জানতে পারেন।

এ বিষয়ে সংসদ সদস্য প্রখ্যাত সাংবাদিক মুহম্মদ শফিকুর রহমান জানান, কাঁশারা মাদ্রাসায় দুর্নীতি হয়েছে। ৭ নং পাইক পাড়া ইউনয়নের এমপি প্রতিনিধিকে শহিদকে ইতোমধ্যে বাদ দেওয়া হয়েছে। মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কীভাবে জামাতি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করতে সহযোগিতা করলেন? আমার ডিউ লেটার প্রদানকৃত একটি প্রতিষ্ঠানও এমপিওভুক্ত করা হয়নি। উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেওয়া হোক।

21 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন