অর্থদাতারা

তারেকের অর্থদাতারা গোয়েন্দা জালে

নিউজ ডেস্ক :

আব্দুল খালেক পাঠান কেয়া কসমিটিকসের কর্ণধার। একই সঙ্গে তিনি কেয়া স্পিনিং মিলসহ বিভিন্ন গার্মেন্টস এবং শিল্প প্রতিষ্ঠানের মালিক।ঋণ খেলাপিও বটে। তার বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ রাখার অভিযোগে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

অনুসন্ধানে দেখা গেছে, তারেক জিয়ার বন্ধু গিয়াস উদ্দীন আল মামুনের ব্যবসায়িক অংশীদার ছিলেন এই আব্দুল খালেক পাঠান। একজন বিএনপিপন্থি ব্যবসায়ী হিসেবে রাজনৈতিক ও ব্যবসায়িক মহলেও বেশ সুপরিচিত তিনি। বিএনপি আমল ২০০১ থেকে ২০০৬ সালে রেপিড গতিতে নিজের ব্যবসার পরিধি বাড়ান এবং বিপুল অর্থ বৈভবের মালিক হয়ে যান। শুধু ব্যবসার পরিধিই নয়, ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে কয়েকটি ব্যাংক থেকে বিপুল পরিমাণ ঋণও গ্রহণ করেছিলেন সেসময়। তিনি গিয়াস উদ্দীন মামুনের সূত্র ধরে তারেক জিয়ারও খুব ঘনিষ্ঠ ছিলেন। পাঠান বিভিন্ন সময়ে তারেক জিয়াকে বিপুল পরিমাণ টাকা পাঠিয়েছেন বলে একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছেন।

গুলশানের সিলভার টাওয়ারের অন্যতম কর্ণধার সেলিম। তিনি সিলভার সেলিম নামেও পরিচিত। হাওয়া ভবনের অন্যতম অর্থদাতা এবং পৃষ্ঠপোষক। এখন নিজেকে রাজনীতি থেকে গুটিয়ে নিয়েছেন বলে দাবি করলেও গোপনে যারা তারেককে অর্থ পাঠায়, তাদের মধ্যে সিলভার সেলিমকে অন্যতম হিসেবে চিহ্নিত করেছে গোয়েন্দারা। সিলভার সেলিমও তারেককে নিয়মিত টাকা পাঠান বলে গোয়েন্দাদের অনুসন্ধানে ওঠে এসেছে।

আব্দুল আওয়াল মিন্টুর পুত্র তাবিথ আউয়াল মিন্টু। তিনি রাজনীতিতে এসেছেন ভুঁইফোঁড় হিসেবে। পৈতৃক সূত্রে তিনি বিএনপির রাজনীতিতে এসেছেন। তাকে ঢাকা সিটি মেয়র নির্বাচনে একাধিক বার মনোনয়ন দেয়া নিয়ে রয়েছে রাজ্যের বিস্ময়। তারেক জিয়ার ঘনিষ্ঠ বলেই তাকে একাধিকবার মনোনয়ন দেয়া হয়েছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে। তাবিথ আউয়াল হলেন তারেকের আরেক সোনার ডিম পাড়া হাঁস। তিনি নিয়মিতভাবে হুন্ডিসহ যাবতীয় চোরাই পথে তারেক জিয়াকে অর্থ পাঠান।

মোরশেদ খানের পুত্র ফয়সাল মোরশেদ বর্তমানে একাধিক দুর্নীতির মামলায় অভিযুক্ত হয়ে সিঙ্গাপুরে আছেন। সিঙ্গাপুর থেকেই তিনি তারেকের সঙ্গে যোগাযোগ রাখেন এবং নিয়মিত অর্থ দেন।

আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বর্তমানে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য। তিনি চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী। তিনিও তারেক জিয়াকে দফায় দফায় বিপুল পরিমাণে অর্থ পাঠিয়েছেন বলে গোয়েন্দাদের কাছে প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হয়েছে।

আব্দুল আউয়াল মিন্টু তাবিথ আওয়ালের পিতা। তিনি বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও দলের বিরাট ডোনার। বলা হয়ে থাকে যে, আব্দুল আউয়াল মিন্টু বিএনপির আর্থিক ‍বিষয়গুলো দেখাশোনা করেন। পাশাপাশি বিভিন্ন ব্যবসায়ী এবং অন্যান্য ব্যক্তিদের সঙ্গে সু সম্পর্কের কারণে তাদের কাছ থেকে অর্থ নিয়ে লন্ডনে তারেক জিয়াকে পাঠান।

এরকম আরো কিছু ব্যক্তিকে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা চিহ্নিত করেছেন যাদের বিরুদ্ধে এ ধরণের অর্থ পাচারের অভিযোগ উঠেছে। বিভিন্ন সূত্রগুলো বলছে যে, লন্ডনে পলাতক তারেক জিয়া ১৫ বছরেরও বেশি সময় ধরে অবস্থান করছেন। সেখানে তার কোনো জ্ঞাত আয় নেই। একটি নামসর্বস্ব কোম্পানি খুলেছেন। কিন্তু এই কোম্পানির কোনো কার্যক্রমও দৃশ্যমান নয়। বরং চাঁদাবাজি, মনোনয়ন বাণিজ্য, কমিটি বাণিজ্য করে বিপুল পরিমাণে বিত্তের মালিক। লন্ডনে তিনি বিপুল বিলাসী জীবনযাপন করেন। আর এই সমস্ত অর্থের যোগান দেন এ রকম আরও কিছু ব্যবসায়ী।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ থেকে প্রতি বছর বিপুল পরিমাণে অর্থ পাচার হয়। প্রতি মাসে পাচার হওয়া এ সব অর্থের বিপুল পরিমাণ অঙ্ক তারেক জিয়ার কাছে চলে যায়। এই টাকাগুলো বেশিরভাগ সময়ে যায় হুন্ডির মাধ্যমে। সাম্প্রতিক সময়ে গোয়েন্দা সংস্থাগুলো তারেকের এই বিপুল অর্থ ও বিলাসী জীবনযাপনের উৎস খুঁজতে গিয়ে পেয়েছেন যে, বেশ কয়েকজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী লন্ডনে তারেককে নিয়মিত টাকা পয়সা পাঠাচ্ছেন। এরা এখন গোয়েন্দা জালে এবং এদের বিরুদ্ধে অর্থ পাচারের অভিযোগে যথাযথ মামলা হবে বলে নিশ্চিত করেছেন দায়িত্বশীল একাধিক সূত্র।

সূত্র : বাংলা ইনসাইডার

আরো পড়ুন : অ্যালার্জি দূর করবে ৫টি খাবার

আরো পড়ুন : শ্বেতী রোগের কারণ, লক্ষ্মণ ও চিকিৎসা

আরো পড়ুন : যৌন রোগের কারণ ও প্রতিকার

আরো পড়ুন : ডায়াবেটিস প্রতিকার ও প্রতিরোধে শক্তিশালী ঔষধ

আরো পড়ুন : মেহ প্রমেহ ও প্রস্রাবে ক্ষয় রোগের কার্যকরী সমাধানসমূহ

আরো পড়ুন : গেজ, অশ্ব,পাইলসের সহজ চিকিৎসা

আরো পড়ুন : মলদ্বার দিয়ে রক্ত পড়ার হোমিও চিকিৎসা

84 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন