সাব রেজিষ্ট্রি অফিস2

ফরিদগঞ্জ সাব-রেজিষ্ট্রি অফিস জরাজীর্ণ দশা, ছাদ চুইয়ে পড়ছে পানি

ফরিদগঞ্জ (চাঁদপুর) সংবাদদাতা:
চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলা সাব- রেজিষ্ট্রি অফিসের জরা-জীর্ণ দশা দীর্ঘদিন যাবৎ চলে আসছে। বার বার ঊর্ধতন কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়েও নতুন ভবনের বরাদ্দ করানো সম্ভব হয়ে উঠেনি। তাছাড়া চরম ঝুঁকির মধ্যে অফিস কাজ চললেও এ পর্যন্ত গণপূর্ত বিভাগ ভবনটিকে পরিত্যক্ত ঘোষণা দেওয়ার সুযোগ করতে পারেনি।

স্বাধীনতা উত্তর ১৯৬৯সনে দ্বিতল বিশিষ্ট এই ভবনটি নির্মাণ করার পর ক্ষুদ্র মেরামত ছাড়া বড় ধরণের কোন মেরামত কাজ হয়নি। অতিগুরুত্বপূর্ণ রেকর্ড রুমে অল্প বৃষ্টিতেই ছাদ চুঁইয়ে পানি পড়ছে। ফলে গুরুত্বপূর্ণ দলিল, নথিপত্রগুলো ভিঁজে বিনষ্ট হয়ে বেকায়দায় পড়তে হচ্ছে সংশ্লিষ্ট দপ্তর ও লোকজনকে। কর্মকতা- কর্মচারীদের কক্ষগুলো বাস অযোগ্য হয়ে পড়েছে।
সাব- রেজিষ্ট্রারের অবস্থানের কক্ষটির ছাদেও পলেস্তরা উঠে গিয়ে রড ভের হয়ে থাকতে দেখা গেছে। তাছাড়া প্রতিনিয়ত খসে পড়ছে পলেস্তরা, কখনও দলীলের উপর আবার কখনও কর্মকর্তা/কর্মচারীদের মাথায়।

যে কোন মুহূর্তে ছাদ ধসে বড় ধরনের দংর্ঘটনার আশংকা করছে সংশ্লিষ্টরা। এ দপ্তটিতে পদ সংখ্যার বিপরীতে ৬ জন জনবলদিয়ে চলছে অফিস কাজ। শূন্য পদ না থাকলেও বিশাল উপজেলা হওয়ায় পদ সংখ্যা সৃজন পূর্বক জনবল বৃদ্ধি করা দরকার। অপরদিকে দিন-রাত লিখে চলছেন, ৩৬জন নকলনবিশ। নকল নবিশরা নিয়মিত বেতন প্রাপ্তির ও বেতন বৃদ্ধির দাবি দীর্ঘদিন করে আসছে।

এ বিষয়ে, উপজেলা সাব-রেজিষ্ট্রার আশ্রাফুল ইসলামের – বক্তব্য হচ্ছে, একাধিকবার জরাজীর্ণ দশা ও নতুন ভবনের জন্য ঊর্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট চলমান পক্রিয়ার অংশ হিসাবে আমি ও আমার পূর্বের কর্মকর্তারা চিঠি দিয়ে অবহিত করা হয়েছে। এ যাবৎ নতুন ভবনের বরাদ্দ আসেনি। শুধু তাই নহে, চাঁদপুর গণপূর্ত বিভাগকে র্জীণ দশায় অফিস কার্যক্রম চালানো ঝুঁকিতে লিখিত ভাবে জানানোর পরও পরিত্যক্ত ঘোষণা দূরের কথা পরিদর্শনেও আসেনি কেউ।

আরো পড়ুন : শ্বেতীর সাদা দাগ দূর করার উপায়

আরো পড়ুন : মেহ প্রমেহ ও প্রস্রাবে ক্ষয় রোগের কার্যকরী সমাধানসমূহ

আরো পড়ুন : পাইলস রোগে করণীয়

আরো পড়ুন : জেনে নিন দীর্ঘক্ষণ মিলনের ঔষধ

আরো পড়ুন : একজিমা হলে কী করবেন?

33 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন