গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যা

শাহরাস্তিতে প্রিয়া হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটনে তৎপর পুলিশ

নিউজ ডেস্ক :

চাঁদপুরের শাহরাস্তিতে নওরোজ আফরিন প্রিয়া (২১) হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটনে বেশ তৎপর রয়েছে পুলিশ। ঘটনার ৫ দিনে পুলিশ কাউকে আটক করতে সক্ষম না হলেও অল্প সময়ের মধ্যে আসামীদের সনাক্ত করে আইনের আওতায় আনা সম্ভব হবে বলে আশাবাদ তদন্ত সংশ্লিষ্টদের।

ঘটনার পর হতেই পুলিশ, সিআইডি ও পিবিআইয়ের টীম তৎপর রয়েছে। পুলিশের বিভিন্ন টীমের সদস্যরা এ হত্যার রহস্য উদঘাটনে ঘটনাস্থল ও আশপাশ পর্যবেক্ষন করেছে। পুলিশের পাশাপাশি পিবিআই ছাড়াও কুমিল্লা হতে সিআইডির বিশেষজ্ঞ টীম ঘটনাস্থল হতে আলামত সংগ্রহ করেছে।

এদিকে তদন্তের অগ্রগতির বিষয়ে পুলিশ মুখ না খুললেও ঘটনার নেপথ্যে নওরোজ আফরিন প্রিয়া (২১) ও তার মা তাহমিনা সুলতানা রুমির বেপরোয়া চলাফেরাকে দায়ী করছেন স্থানীয়রা।

তাদের অভিমত, এই পরিবারের সাথে কারও পূর্ব শত্রুতা নেই। তবে পরকিয়া জনিত কারণে এমন ঘটনা ঘটতে পারে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এলাকার লোকজন জানান, প্রায় ২/৩ বছর পূর্বে মা এবং মেয়ের সাথে বড় ধরনের সমস্যা সৃষ্টি হয়েছিল ওই সময় তার বাবা ইসমাইল হোসেন তার মার সাথে কথাবার্তা বলা বন্ধ করে দিয়েছিল। মেয়েকে দিয়ে সব কাজ করাতেন এবং তার মাকে বিদায় করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হওয়ায়, তিনি প্রায় ১২ বছর বাংলাদেশে আসছেন না ওই থেকে মা মেয়ের মাঝে দা-কুমড়া সম্পর্ক ছিল।

আরো পড়ুন : শ্বেতী রোগের কারণ, লক্ষ্মণ ও চিকিৎসা

সূত্র আরও জানায় প্রিয়া নিজেও অনেকের সাথে প্রেম-পরকীয়ায় জড়িয়েছে। সে মোবাইল, ফেসবুক ম্যাসেঞ্জার ও ইমোতে দীর্ঘ সময় ব্যস্ত থাকতো। বিয়ের পরও প্রিয়ার বহুগামী স্বভাব বন্ধ হয়নি। এ নিয়ে প্রিয়ার স্বামীর সাথে মানসিক দূরত্ব থাকায় সে বাবার বাড়িতে বেশি সময় থাকতো।

প্রিয়ার মা ঘটনার সময় নাতনীর জন্য ঔষধ আনতে পাশের বাড়িতে স্থানিয় গ্রাম্য চিকিৎসক গৌরাঙ্গের কাছে যাওয়ার কথা মামলায় উল্লেখ করলেও ওই চিকিৎসকের বাড়িতে খোঁজ নিয়ে জানা যায় তিনি ঘটনার সময় কবিরাজের বাড়ি যাননি। বিকেলে উপজেলা সদর হতে ডাক্তার দেখিয়ে সন্ধ্যার পর কবিরাজের কাছে কেন গিয়েছেন এমন প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে এলাকার লোকজনের মাঝে।

আরো পড়ুন : যৌন রোগের কারণ ও প্রতিকার

এখন পর্যন্ত ঘটনার রহস্য কতটুকু জানা গেছে এমন প্রশ্নের জবাবে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক আসাদুল ইসলাম জানান, তদন্তাধীন বিষয়ে উর্ধতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া কথা বলা যাবে না।

শাহরাস্তি থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ আবদুল মান্নান জানান, প্রিয়া হত্যা রহস্য উদঘাটনে পুলিশ কাজ করছে। আশা করি অল্প সময়ের মধ্যে আসামীদের সনাক্ত করে আইনের আওতায় আনা সম্ভব হবে।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) রাত ৮টার দিকে উপজেলার রায়শ্রী দক্ষিন ইউনিয়নের আহাম্মদ নগর ছোটপোদ্দার বাড়িতে নওরোজ আফরিন প্রিয়া (২১) নামে গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

সে ওই বাড়ীর প্রবাসী ইসমাইল হোসেনের একমাত্র মেয়ে। তার স্বামীর বাড়ী কুমিল্লায়। স্বামী কাইরুজ্জামান চৌধুরী হৃদয় কুমিল্লায় চাকরি করেন। নিহতের আবরীন জামান উম্মে আনহার (২) নামে শিশু সন্তান রয়েছে।

ঘটনার সময় নিহতের মা তাহমিনা সুলতানা রুমি প্রিয়ার মেয়ে আনহার জন্য ঔষধ আনতে পাশের বাড়িতে স্থানিয় গ্রাম্য চিকিৎসক গৌরাঙ্গের কাছে গিয়েছেলেন বলে মামলায় উল্লেখ করেছেন। সেখান থেকে ফিরে তিনি ঘরে প্রিয়ার রক্তাক্ত লাশ দেখতে পান।

ঘটনার পরদিন প্রিয়ার মা তাহমিনা সুলতানা রুমি শাহরাস্তি মডেল থানায় অজ্ঞাতদের আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলার এজহারে ঘটনার রাত ৭ টা ৫ মিনিট হতে ৮টা ৩০ মিনিটের মধ্যবর্তী যে কোন সময়ে মধ্যে অজ্ঞাতনামা দুষ্কৃতিকারী বা দুষ্কৃতিকারীরা গোপনে ঘরে প্রবেশ করে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে প্রিয়াকে হত্যা করে চলে যায় মর্মে উল্লেখ করা হয়েছে।

আরো পড়ুন : ডায়াবেটিস প্রতিকার ও প্রতিরোধে শক্তিশালী ঔষধ

আরো পড়ুন : মেহ প্রমেহ ও প্রস্রাবে ক্ষয় রোগের কার্যকরী সমাধানসমূহ

আরো পড়ুন : গেজ, অশ্ব,পাইলসের সহজ চিকিৎসা

আরো পড়ুন : মলদ্বার দিয়ে রক্ত পড়ার হোমিও চিকিৎসা

93 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন