chandpurreport 296

ফরিদগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনা-পানিতে পড়ে মৃত্যু ও বাল্য বিয়ের হার রোধে কর্মশালা

ফরিদগঞ্জ প্রতিনিধি : :
চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনা, পানিতে পড়ে মৃত্যু ও বাল্য বিয়ের হার রোধে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে দিনব্যাপী কর্মশালা রোববার (১৪ নভেম্বর) উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সম্পন্ন হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের আয়োজনে ও চাঁদপুর সিভিল সার্জন অফিসের বাস্তবায়নে দিনব্যাপী কর্মশালায় ফরিদগঞ্জ উপজেলায় কর্মরত সাংবাদকর্মী, রাজনৈতিক ব্যক্তি, মসজিদের ইমাম, শিক্ষক ও জনপ্রতিনিধিরা অংশগ্রহণ করেন।

কর্মশালায় উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মোঃ আশ্রাফ আহম্মেদ চৌধুরী বিষয়বস্তু নিয়ে ব্যাপক আলোকপাত করেন।

এ সময় তিনি বলেন, আমাদের প্রতি এক হাজারে মাতৃ মৃত্যুর হার হচ্ছে ১শত ৭০ জন। এ হারকে আমরা ৭০ সংখ্যায় নিয়ে আসতে চাই। সে লক্ষ্যে আমরা কাজ শুরু করেছি।

তিনি স্বীকার করে বলেন, আমাদের সিস্টিমেটিকে অনেক সীমাবদ্ধতা রয়েছে তবে তারপরেও আমরা ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে এ হাসপাতালে সিজার ও নরমাল ডেলিভারি করাতে সক্ষম হয়েছি।

জেলা সিভিল সার্জন অফিসের স্বাস্থ্য বিভাগের শিক্ষা বিষয়ক কর্মকর্তা মোঃ ইউসুফ সার্বিক দিক তুলে ধরেন।

আরো পড়ুন : শ্বেতী রোগের কারণ, লক্ষ্মণ ও চিকিৎসা

অন্যান্যদের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন আরএমও ডা. কামরুল ইসলাম, ডা. সুব্রত, সাংবাদিক ও সহকারী অধ্যাপক মো. মহিউদ্দিন, আব ুহেনা মোস্তফা কামাল, নুরুন্নবী নোমান, প্রবীর চক্রবর্ত্তী, জাকির হোসেন সৈকত, জেলা পরিষদের সদস্য মশিউর রহমান মিটু, কাউন্সিলর জাহিদুল ইসলাম, মহিলা কাউন্সিলর খোদেজা আক্তার, উপজেলা পরিষদ জামে মসজিদের খতিব মাও. ইউনুছ প্রমুখ।

আলোচকরা বলেন, বাল্য বিয়ে রোধে কর্মশালায় উপস্থিত সকলে কথা ও কাজে এক থেকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করলে কাংঙ্খিত পর্যায় নিয়ে আনা সম্ভব। পানিতে পড়ে মৃত্যুর হার কমাতে সকলকে পারিবারিকভাবে সচেতন হতে হবে বলে উল্লেখ করা হয়।

আরো পড়ুন : মেহ-প্রমেহ ও প্রস্রাবে ক্ষয় রোগের প্রতিকার

মাদক ও ধুমপান রোধেও সচেতনতার বিকল্প নেই বলে বক্তারা উল্লেখ করেছেন। কমিউনিটি ক্লিনিক,উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র, মা ও শিশু কেন্দ্র, ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্র ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত চিকিৎসা সেবার সাথে জড়িত সকলে একটু আন্তরিক হলে এ সীমাবদ্ধতার মধ্যেও সাধারণ মানুষজনকে সেবা দেওয়া সম্ভব। সার্বক্ষণিক আমাকে সেবার মন নিয়েই চলতে হবে। তাহলে অনেক অভাব পূরণ হয়ে যাবে। অনেক না পাওয়ার আকাংঙ্খা মিটে যাবে। আমাদের সামাজিক, পারিবারিক, ধর্মীয় অনুশাসনগুলোকে গুরুত্ব দিতে হবে। কার্যতঃ এ অনুশাসনগুলো ভেঙ্গে পড়ায় আজ এ হাল হয়েছে। স্ব স্ব অবস্থানে থেকে কর্মশালায় উপস্থিত সকলে কথা-কাজে এক থেকে দায়িত্ব পালন করলে উল্লেখিত বিষয়ে কাংঙ্খিত মানে উপনীত হওয়া যাবে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

 16 সর্বমোট পড়েছেন,  1 আজ পড়েছেন

শেয়ার করুন