chandpurreport 340

হাজীগঞ্জে মসজিদের সামনে মেয়েকে রেখে গেলেন মা, খুঁজে নিলেন বাবা

নিউজ ডেস্ক :
চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে ঐতিহাসিক বড় মসজিদের সামনে ফেলে যাওয়া শিশুটির পরিবারের সন্ধান পাওয়া গেছে। শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) দুপুরে বাবার হাতে শিশুটিকে তুলে দেন হাজীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোমেনা আক্তার।

লক্ষীপুর জেলার রামগঞ্জ উপজেলার ১নং কাঞ্চনপুর ইউনিয়নের জয়পুরা পুরান বাড়ির আজাদ হোসেনের মেয়ে আয়েশা সিদ্দিকা (২)।

গত ১৬ নভেম্বর শিশু আয়েশার মা তাকে হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদের মহিলাদের নামাজ পড়ার কক্ষের সামনে রেখে চলে যায়। পরে শিশুটির বাবাকে ফোন করে মেয়েটিকে নিয়ে যেতে বলেন। রাতে শিশুর বাবা আজাদ হোসেন খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে খুঁজে মেয়েটিকে না পেয়ে বাড়িতে চলে যান।

স্থানীয় ব্যবসায়ীরা ৯৯৯ কল করলে হাজীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোমেনা আক্তার ও অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হারুনুর রশিদ শিশুটিকে হাজীগঞ্জ সমাজসেবা অফিসারের নিকট ন্যস্ত করেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, শিশুটিকে নতুন জামাকাপড় কিনে দিয়ে চিকিৎসার জন্য হাজীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। শিশুটির পরিবারের সদস্যরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে (ফেসবুকে) আয়েশাকে দেখে চিনতে পেরে হাজীগঞ্জ থানায় যোগাযোগ করেন।

শুক্রবার সকালে উপযুক্ত পরিচয়ের পর শিশুটির বাবা আজাদ হোসেন, দাদা সফিকুল ইসলাম, নানী ও খালার উপস্থিতিতে কন্যা শিশুটিকে পরিবারের কাছে হস্থান্তর করা হয়।

শিশুটির বাবা আজাদ বলেন, জান্নাতুল ফেরদৌস মিতুকে প্রেম করে বিয়ে করি। সে গত ৫-৬ মাস তার বাবার বাড়ী শাহরাস্তি উপজেলার সুচিপাড়া উত্তর ইউনিয়নে পাথৈর গ্রামে থাকতো। হঠাৎ কেনো শিশুটিকে মসজিদের সামনে রেখে উধাও হয়ে গেলো বুঝতে পারছি না। তার ব্যবহৃত মুঠো ফোনটিও বন্ধ রয়েছে।

শিশুটি হস্তান্তরের সময় হাজীগঞ্জ থানার এসআই প্রভাকর বড়ুয়া, সমাজ সেবা কার্যালয়ের মাঠকর্মী জসিমউদ্দিন, রামগঞ্জ উপজেলার ১ নং কাঞ্চনপুর ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের মেম্বার জাহাঙ্গীর আলম, সূচীপাড়া উত্তর ইউনিয়নের সংরক্ষিত মহিলা সদস্য শিল্পি বেগম, শিশু আয়েশা সিদ্দিকার নানী ও খালা উপস্থিত ছিলেন।

 318 সর্বমোট পড়েছেন,  1 আজ পড়েছেন

শেয়ার করুন