chandpurreport 332

হাজীগঞ্জ রাজারগাঁওয়ে ফ্রিডম পার্টির নেতাকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেয়ার অভিযোগ

নিউজ ডেস্ক :
ওয়ান-ইলেভেনের সময় তালিকাভুক্ত ঢাকার ৪২ জন শীর্ষ সন্ত্রাসীর একজন আবুল কাশেম ওরফে আব্দুল হাদী মিয়া। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ থেকে তাকে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়ন দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

ফ্রিডম পার্টির মধ্য দিয়ে রাজনীতি শুরু করা এই নেতা বর্তমানে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার ১নং রাজারগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও বর্তমানে ইউপি আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন।

বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের মাওলানা মোহাম্মদ আকরাম খাঁ হলে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগ করা হয়।

‘হাইব্রিড হটাও, আওয়ামী লীগ বাঁচাও’ শীর্ষক স্লোগানে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ১নং রাজারগাঁও ইউনিয়নের সাবেক ছাত্রলীগ ও স্থানীয় উচ্চ বিদ্যালয় কমিটির সাবেক সভাপতি আখতার হোসেন মুন্সি।

আখতার হোসেন আরও অভিযোগ করেন, আব্দুল হাদি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি রুস্তম বেপারী ও তার পরিবারের সম্পদ দখল করে বাউন্ডারি নির্মাণ করেছেন। ২০১৩ সালের ২৯ জুন রাজারগাঁও বাজারের স্বনামধন্য হিন্দু ব্যবসায়ী দ্বিজেন্দ্রলাল পোদ্দারের দুটি কাপড়ের দোকান ও পাশের একটি মুদি দোকানসহ মোট তিনটি দোকান লুটপাট করে তার অনুসারী সন্ত্রাসী বাহিনী।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ১নং রাজারগাঁও ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি আক্তার হোসেন মুন্সি। তিনি বলেন, ‘আজকে হাজীগঞ্জ উপজেলার ১নং রাজারগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান আ. হাদী মিয়ার বিষয়ে আপনাদের সামনে তুলে ধরতে চাই। শীর্ষ সন্ত্রাসী আবুল কাশেম ওরফে হাদী সময়ের আবর্তনে আ. হাদী মিয়া নাম ধারণ করেছে। নাম পরিবর্তন করে আওয়ামী লীগের সাইনবোর্ড গায়ে ঝুলিয়ে এলাকায় সব ধরনের অপকর্ম করে যাচ্ছে। তার সংগঠনবিরোধী কর্মকাণ্ড অত্র এলাকার আওয়ামী লীগকে সাধারণ মানুষের কাছে জনসমর্থনহীন করে তুলছে।’

তিনি দাবি করেন, ‘২০০১ সালের পরবর্তী সময়েও আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের অবস্থা এত খারাপ ছিল না। বর্তমানে হাদী চেয়ারম্যানের মনমতো না হলে কেউ ছাত্রলীগ, যুবলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক হতে পারে না। দলের অন্য কেউ কথা বললেও তাকে বিভিন্নভাবে হয়রানি, হুমকি-ধামকি দেওয়া হয়। আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে সে আবারও চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করতে যাচ্ছে বলে আমরা জানতে পেরেছি।’

আক্তার হোসেন মুন্সি অভিযোগ করে বলেন, ‘উঠতি বয়সের ছেলেদেরকে নিয়ে হাদী কিশোর গ্যাং তৈরি করে এলাকার বিভিন্নস্থানে মাদক সরবরাহ, চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। অন্যের জমি দখল, তার মতের বিরোধীদের মারধর, মামলা হামলা তার নিয়মিত কার্যক্রম।’

তিনি আরও বলেন, ‘গত ইউনিয়ন কাউন্সিলে প্রায় ৪০ জন জামায়াত-বিএনপির চিহ্নিত নেতাকর্মীকে আওয়ামী লীগের ওয়ার্ড কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত করে হাদী। এসব ভোট কাজে লাগিয়ে সে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হয়। আওয়ামী লীগের ইউনিয়ন কমিটিতে সে জামায়াত-বিএনপির লোকজন ঢুকিয়েছে। এমনকী তিনজন মৃত ব্যক্তিকেও কমিটিতে রাখে। যারা পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন হওয়ার এক বছর আগেই মারা গেছে।’

এসময় আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে হাদীকে মনোনয়ন না দেওয়ার অনুরোধ জানিয়ে দলের জন্য কাজ করেন এমন ব্যক্তিদের মনোনয়ন দেওয়ার দাবি জানান তিনি। একইসঙ্গে বর্তমান কমিটি বিলুপ্ত করে পুনরায় কাউন্সিলের মাধ্যমে ১নং রাজারগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি করারও দাবি জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে হাজীগঞ্জের ১নং রাজাগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. কাউছার বেপারীসহ আরও বেশ কয়েকজন উপস্থিত ছিলেন।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে আব্দুল হাদী মিয়া বলেন, ‘এসব অভিযোগ সবই মিথ্যা। আমার বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগের প্রমাণ তাদের কাছে নাই। যারা এসব অভিযোগ করেছে, এরা তো পাগল, এরা আওয়ামী লীগের কী।’

123 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন