পাখি

কচুয়ায় হারিয়ে যাচ্ছে দেশীয় বক পাখি

ওমর ফারুক সাইম ::
এক সময় বিল ও জলাশয়ের ধারে দল বেঁধে নামতো দেশীয় সাদা বক পাখি কিন্তু কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে কৃষক-কৃষানীর বন্ধু নামে পরিচিত এই বক পাখি। কৃষক-কৃষাণী যখন লাঙ্গল দিয়ে জমি চাষ করে এবং ফসল কাটার সময় সাদা বকসহ পাখির দল তাদেরকে ঘিরে ধরতো।

এই বকগুলো জমির ক্ষতিকারক পোকামাকড় খেয়ে জীবিকা নির্বাহ করে আসছে। দ্রæত শহরায়নের ফলে পরিবেশবান্ধব এসব পাখি এখন হারিয়ে যেতে বসেছে। কৃষিতে মাত্রাতিরিক্ত কীটনাশক ও অসাধু পাখি শিকারীদের ফাঁদে পরে বিলীন হচ্ছে কৃষকবান্ধব এসব পাখি। জলবায়ু পরিবর্তন ও পাখিদের আবাসস্থল বড় গাছ ও বন-জঙ্গল ধ্বংসের ফলেও হারিয়ে যাচ্ছে এরা।

সম্প্রতি কচুয়া উপজেলার কড়ইয়া ইউনিয়নের দরিয়াহায়াতপুর মাঠে ইরি ধানের ক্ষেতে কৃষক চাষের জন্য জমি প্রস্তুত করার সময় দেখা গেলো শত শত দেশীয় সাদা বক। এ সময় দেখা যায়, প্রায় শতাধিক বক উড়ে এসে কৃষকের লাঙ্গলের ফলার চার পাশে ঘিরে কিচির মিচির শব্দে উড়ে পোকা খাচ্ছে। কখনো ঝাঁক ধরে উড়ে যাচ্ছে আকাশে। কখনও আবার এক জমি থেকে অন্য জমিতে উড়ে গিয়ে বসছে। এদের এইরকম কিচির মিচির শব্দ ও উড়ে বেড়ানো দেখে কৃষকরা উল্লাশিত।

মাঠে কাজ করা কৃষক শহিদুল ইসলাম ও মো. লিটন জানান, বক আমাদের অনেক উপকার করে। চারা ধানের জমিতে মাজরা পোকা ও ফড়িংসহ ক্ষতিকারক বিভিন্ন পোকা খেয়ে ফলসকে রক্ষা করে। এছাড়া জমিতে পানি দেওয়ার পর অপকারী পোকা পনিতে ভাসতে থাকে তখন দল বেধে এই বক সেসকল পোকা খেয়ে ফেলে। কিন্তু এখন এই সাদা বক আগের মতো আর তেমন চোখে পরে না। শিকারীদের ফাঁদে পড়ে বিলুপ্তির পথে এই বকগুলো।যার দরুন ফসলি জমিতে পোকার উপদ্রব বৃদ্ধি পেয়েছে। এজন্য আমাদেরকে বেশি পরিমানে কিটনাশক ব্যবহার করতে হচ্ছে।

উপজেলার কাদলা গ্রামের কৃষক বিল্লাল হোসেন জানান, ছোট বেলা থেকে মাঠেই কাটে সকাল-সন্ধ্যা। ছোট বেলায় মাঠে অনেক ধরনের পাখি দেখতাম। প্রতিদিন ঘুম ভাঙতো পাখির ডাকে। কিন্তু বর্তমানে সেসব পাখি আর দেখা যায় না। গাছ কাটায় পাখিরা আবাসস্থল হারাচ্ছে। তাছাড়া জমির ফসলে কীটনাশক ব্যবহারের কারণে ছোট মাছ ও পোকামাকড় মারা যাচ্ছে। ফলে বিষযুক্ত খাদ্য খেয়ে প্রাণ হারাচ্ছে এসব পাখি।

উপজেলার সাচার ইউনিয়নের ঘুগড়ার বিলের কৃষক রাকিবুল হাসান জানান, ৫ থেকে ৭ বছর আগেও বাড়ির পাশের ঝোঁপ ঝাড়ে বসবাস করা অসংখ্য পাখির কিচিরমিচির ডাকে সন্ধ্যা হতো। আবার পাখির ডাকে ঘুম ভাঙতো। দ্রæত নগরায়নের ফলে পাখির আবাসস্থল হারিয়ে যাচ্ছে। ফলে এখন আর আগের মতো পাখি দেখা যায় না।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা মো. সাখাওয়াত হোসেন (সুমন) বলেন, গ্রামের ঐতিহ্য অপরূপ সৌন্দর্যের প্রতীক এই দেশীয় সাদাবক আগের মতো আর দেখা যায় না। এই পাখিটি পরিবেশ দূষণ ও শিকারীদের ফাঁদে পড়ে এখন প্রায় বিলুপ্তির পথে। এই পাখি মারার কোনো নিয়ম নেই। পাখিসহ সকল প্রকার পাখি টিকিয়ে রাখতে হলে আমাদের সবাইকে সচেতন হতে হবে।

 57 সর্বমোট পড়েছেন,  1 আজ পড়েছেন

শেয়ার করুন