রিপোর্ট 411

চাঁদপুরে মসজিদ কমিটির দ্বন্দ্বের জের, বৃদ্ধাকে রক্তাক্ত, অর্থ লুটের অভিযোগ : আহত ৪

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, চাঁদপুর : চাঁদপুর শহরের যমুনা রোডে মসজিদ কমিটির দ্বন্দ্বের জের ধরে অতর্কিতভাবে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়ে বৃদ্ধকে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে নগদ অর্থ ও স্বর্ণালংকার লুট করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই ঘটনায় আরও তিনজন গুরুতর আহত চাঁদপুর সহকারি জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা নিয়েছে।

১১ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টায় চাঁদপুর শহরের বড় স্টেশন রোড এলাকার মধ্য বাংলার সামনে এ হামলার ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে চাঁদপুর মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং আহতদের দেখতে হাসপাতালে যান।

আহত বৃদ্ধ বাবুল মোল্লা (৬০) যমুনা রোড এলাকার মৃত চানমিয়া মোল্লার ছেলে ও চাঁদপুর বড় স্টেশন মাছ ঘাটের মৎস্য ব্যবসায়ী। বাকি আহতরা হলেন, যমুনা রোড এলাকার বাবুল মোল্লার ছেলে নুর মোহাম্মদ (২৯), হানিফ মোল্লার মেয়ে লাকী আক্তার (৩৬) ও সেকান্তর হাওলাদারের ছেলে বাবু হাওলাদার (৩০)।

আহতরা জানায়, একই এলাকার মঞ্জিল বেপারীর ছেলে মহসিন বেপারী, হানিফ বেপারী, জয়নাল মোল্লার ছেলে আলা-আমিন মোল্লা, জুনায়েদ মোল্লা, মন গাজীর ছেলে ইমন গাজী, জামাল মোল্লার ছেলে নাজির মোল্লা ও পল্টু মোল্লা গংদের সাথে এলাকার মসজিদ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে তাদের সাথে দন্ধ চলে আসছে। ওই পূর্ব শত্রুতার জের ধরে শুক্রবার সন্ধ্যায় উল্লেখ্যিতরা পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র , লােহার রড, লাঠিসােঠা নিয়ে অর্তিকিত ভাবে তাদের টেইলাসের দোকানে লুটপাটের উদ্দেশ্যে হামলা চালায়। এসময় মৎস ব্যবসায়ী আহত বৃদ্ধ বাবুল মোল্লা তাদের হামলা থেকে নিজেদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বাঁচাতে দ্রুত দোকান বন্ধ করতে গেলে মহসিন বেপারী চাইনিজ কুড়াল দিয়ে তার হাতে কোপ দিয়ে রক্তাক্ত জখম করে বলে অভিযোগ। এসময় হামলার খবর পেয়ে তার ডাক চিৎকারে তার স্বজনরা এগিয়ে গেলে উল্লেখিতরা দেশীয় অস্ত্র দিয়ে হামলা চালায়। তাদের অভিযোগ হামলার সময় হামলাকারী মহসিন সহ অন্যান্যরা তার সাথে থাকা ব্যবসার নগদ ৬৫ হাজার টাকা নিয়ে যায়।

আহত লাকী আক্তার জানায়, তারা আমার চাচার দোকানে অর্তকিত হামলা চালিয়ে উনাকে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করার খবর পেয়ে আমরা তাকে রক্ষা করতে দৌড়ে এগিয়ে গেলে মহসিন বেপারীসহ তার সাথের লোকজন আমাকেও মেরে আহত করে। এসময় তারা আমার জামা কাপড় টেনে হিছড়ে শীলতাহানি করে গলায় থাকা ১ ভরি ওজনের স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নিয়ে যায়। পরে খবর পেয়ে চাঁদপুর মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে আসলে, আমরা সবাই চাঁদপুর সরকারি হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসাসেবা নেই। বর্তমানে আমার চাচার অবস্থা খুবই গুরত্বপূর্ণ। তিনি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এদিকে ঘটনার দিন রাতেই আহত মৎস ব্যবসায়ীর ছেলে মোঃ মাসুদ রানা বাদী হয়ে হামলাকারীদের বিরুদ্ধে চাঁদপুর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন বলে তারা জানিয়েছেন।

 59 সর্বমোট পড়েছেন,  1 আজ পড়েছেন

শেয়ার করুন