ফরিদগঞ্জে প্রেমের টানে ঘর ছাড়লো কিশোরী : থানায় জিডি

ফরিদগঞ্জ প্রতিনিধিঃ
ফরিদগঞ্জে প্রেমের টানে ঘর ছাড়লো কিশোরী। এনিয়ে থানায় জিডি করেন কিশোরীর দাদী রেজিয়া বেগম। জিডি হওয়া তিন মাসেও উদ্ধার করতে পারেনি থানা পুলিশ। এদিকে পরিবারের লোকজনের সহযোগিতায় পালিয়ে গিয়েছে কিশোরী। স্থানীয় লোকজন জানিয়েছে।

জিডির পর থেকে উদ্ধারের বিষয়ে আর কোন যোগাযোগ করেনি বলে অভিযোগ করে থানা পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার ১৫নং রুপা দক্ষিণ ইউনিয়নের ভাটেরহদ গ্রামের তালুকদার বাড়িতে।

সরজমিনে গিয়ে জানাযায়, গত ২৮শে নভেম্বর উপজেলার হাজী আব্দুল আহাদ উচ্চ বিদ্যালয়ে অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী নুসরাত জাহান বীথী (১৩) পরিক্ষার নাম করে বাড়ি থেকে বের হন। পরিক্ষা না দিয়ে বীথী সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী মোজাম্মেল হোসেনের ঘোড়ার রাখাল নওগাঁ জেলার ইয়াদ আলীর ছেলে ওয়াহিদের সাথে চলে যায়। এ নিয়ে পুরো এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে পালিয়ে যাওয়া দুই দিন পর বীথীর দাদী রেজিনা বেগম হারিয়েছে বলে থানায় জিডি করেন। জিডির পর থেকে উদ্ধারের বিষয়ে তেমন কোন যোগাযোগ করেনি বীথীর দাদী। বীথী পালিয়ে যাওয়া পর থেকে দাদী রেজিয়া বেগমের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ রাখছেন কিশোরী। তাহলে হারিয়েছে বলে কেন এত নাটক করলেন বীথীর পরিবারের লোকজন এমন প্রশ্ন স্থানীয় লোকজনের।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন বলেন, বীথীর সাথে ছেলেটির দীর্ঘদিন ধরে যোগাযোগ রয়েছে। বীথীদের ঘরে আসা-যাওয়া করতো ছেলেটি। তারা ইচ্ছা কৃত বীথীকে ঐ ছেলের সাথে পাঠিয়ে দিয়ে থানায় হারিয়েছে বলে মিথ্যা জিডি করেছেন।

বীথীর দাদী রেজিয়া বেগম বলেন, চেয়ারম্যানের ঘোড়ার রাখাল ছেলেটি আমার নাতনী বীথীকে নিয়ে পালিয়েছে। আমি থানায় জিডি করেছি। পুলিশ কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেনি। অপর এ প্রশ্নের জবাবে বলেন, বীথী যাওয়ার পরে অন্য লোকের ফোন দিয়ে আমার সাথে কথা বলেছে। আমি ছেলের বাবার সাথে কথা বলেছি। তারা আমাদের কাছে যৌতুক দাবি করে।

সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী মোজাম্মেল হোসেন বলেন, বীথী দাদী রেজিয়া বেগম আমার কাছে এসেছিল। আমি তাদের সকল ধরনের সহযোগিতা করেছি। আমি চাই মেয়েটি উদ্ধার হোক।

এবিষয়ে ফরিদগঞ্জ থানার এস আই মহিউদ্দিন বলেন, আমি জিডি মূলে বীথীদের বাড়িতে গিয়েছে। জানতে পারলাম বীথী চেয়ারম্যান সাহেবের ঘোড়া রাখালের সাথে চলে গেছে। আমি ছেলে এবং মেয়ের লোকেশন ট্র্যাকিং করেছি কিন্তু তারা আমাদের সাথে আর কোন যোগাযোগ করেনি।

এ বিযয়ে থানার অফিসার ইন চার্জ মো:সহিদ হোসেন জানান, তদন্ত পূর্বক প্রয়োজনীয় ববস্থা নেয়া হবে।

 32 সর্বমোট পড়েছেন,  1 আজ পড়েছেন

শেয়ার করুন