রিপোর্ট 6

হাইমচরে চরভৈরবী ওহাবীয়া এতিমখানার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অভিযোগ

হাইমচর প্রতিনিধি :

হাইমচর উপজেলার চরভৈরবী ইউনিয়নের প্রত্যন্ত অঞ্চলে অসহায়, হতদরিদ্র ও এতিমদের আশ্রয়স্থল ‘চরভৈরবী ওহাবীয়া এতিমখানা’র বিরুদ্ধে অপপ্রচার ও ষড়যন্ত্রের অভিযোগ উঠেছে। মূল তথ্য গোপন করে মনগড়া মিথ্যা ও বানোয়াট বক্তব্য সাজিয়ে এতিমদের আশ্রয়স্থলে থাবা বসিয়েছে কিছু স্বার্থান্বেষী।

এতিমখানা কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয়রা জানান, আমাদের এতিমখানায় এতিম, হতদরিদ্র ও অসহায় শিক্ষার্থী, ম্যানেজার, শিক্ষক, বাবুর্চিসহ অর্ধশতাধিক জনবল রয়েছে। এলাকাবাসীর সহযোগিতা ও সরকারি বিভিন্ন অনুদানে এতিমখানাটি সচল রাখতে হিমসিম খেতে হচ্ছে। তবুও নিজেদের প্রচেষ্টায় এতিমদের আশ্রয়স্থলটি আমরা টিকিয়ে রাখার সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু হীন স্বার্থ চরিতার্থ করার লক্ষে কিছু স্বার্থান্বেষী প্রতি বছর-ই কয়েকবার হানা দেয় এতিমদের এ আশ্রয়স্থলে। বিভিন্ন বিষয়ে মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য দিয়ে অপপ্রচার চালানোর চেষ্টা করে। এবছরও একই নিয়মে তারা অপপ্রচার চালাচ্ছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, চরভৈরবী ওহাবীয়া এতিমখানার হাজিরা খাতা অনুযায়ী ৭০ জন এতিম, হতদরিদ্র ও অসহায় শিক্ষার্থীর তালিকা রয়েছে। করোনা মহামারিতে ১৫ জন ছুটিতে রয়েছে। ৫/৭ জন পড়াশোনার পাশাপাশি সেলাই কাজসহ বিভিন্ন দক্ষতা অর্জনে ঢাকা ও বিভিন্ন জেলায় অবস্থান করছে। এতিমখানায় ম্যানেজার শিক্ষক ও স্টাফসহ নিয়মিত ৫০ জনের উপস্থিতি রয়েছে।

এতিমখানার ম্যানেজার মোঃ আবু তাহের জানান, দৈনিক ৩ বেলা খাবার, পোষাক পরিচ্ছেদ ও আনুষঙ্গিক খরচসহ প্রতি জন এতিমের যে পরিমাণ খরচ হয় সরকারি অনুদানে তা পূরণ করা সম্ভব হয় না। স্থানীয় দানশীল ব্যক্তিদের সহায়তা নিয়ে এতিমখানা চালাতে প্রতিমাসেই হিমসিম খেতে হয় আমাদের। এর মধ্যেই মূল তথ্য গোপন করে কিছু স্বার্থান্বেষী এতিমখানাটির বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালায়।

এতিমখানার শিক্ষক মাওলানা কামরুল হাসান বলেন, করোনা পরিস্থিতির কারণে দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। তাই এতিমখানার হতদরিদ্র ও অসহায় শিক্ষার্থীরা ছুটি নিয়ে বাড়িতে আছে কিছু দিনের জন্য। ছুটি শেষে কেউ আসে আবার কেউ যায়। তবে নিয়মিত ৪০/৪৫ জন এতিম, হতদরিদ্র ও অসহায় শিক্ষার্থী এখানে থাকে, খাওয়া দাওয়া করে। এদের যাবতীয় খরচ এই এতিমখানা থেকেই সরবরাহ করা হয়।
অ্যাটাচমেন্ট এরিয়া

 36 সর্বমোট পড়েছেন,  1 আজ পড়েছেন

শেয়ার করুন