রিপোর্ট 1015

হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে চাঁদপুরের প্রকৌশলীর রহস্যজনক মৃত্যু

নিউজ ডেস্ক :

চাঁদপুরের সুব্রত সাহা (৫২) নামের এক প্রকৌশলীর রাজধানীর ফাইভ স্টার হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে কর্মরত অবস্থায় রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। তবে এটি হত্যা না আত্মহত্যা প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশ।

বুধবার ২৫ মে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে রমনা থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাশটি উদ্ধার করে। ময়নাতদন্ত শেষে গতকাল ২৬ মে বৃহস্পতিবার রাত আটটায় নিহত সুব্রত সাহার মৃতদেহ লাশবাহী এম্বুলেন্সে করে চাঁদপুরের বাড়ি শহরের কোড়ালিয়া সাহা বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। পরে সেখান থেকে তাঁর শেষকৃত্য অনুষ্ঠান করার জন্য মহাশ্মশানে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

নিহত সুব্রত সাহার বড় ভাই রতন সাহা জানান, হোটেলের ছাদ থেকে নিচে পড়লে শরীরে আঘাতের চিহ্ন থাকবে। কিন্তু তার ভাইয়ের শরীরে এ ধরনে কোনো আলামত তারা দেখতে পায়নি। পরিবারের দাবি তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। কোড়ালিয়া সাহা বাড়ির প্রয়াত পরেশ সাহার ৭ ছেলের মধ্যে প্রকৌশলী সুব্রত সাহা ছিলেন ষষ্ঠ সন্তান। পালবাজারে তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

নিহত সুব্রত সাহার লাশ এলাকায় নিয়ে আসলে স্থানীয় কাউন্সিলর ও চাঁদপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র অ্যাডভোকেট হেলাল হোসাইনসহ অনেক শুভাকাক্সিক্ষ অনেকেই দেখতে যান এবং স্বজনদের সান্ত্বনা দেয়।

ঘটনার বিষয়ে সাংবাদিকদের রমনা থানার ওসি মনিরুল ইসলাম বলেন, হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালের দ্বিতীয় তলা থেকে প্রকৌশলী সুব্রত সাহা নামের একজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ঘটনাস্থলে পৌঁছে পুলিশ আলামত সংগ্রহ করছে। হোটেলের ছাদ থেকে দ্বিতীয় তলার কার্নিশে পড়ে বলে জানা গেছে।

অফিসার ইনচার্জ বলেন, তাকে কেউ ফেলে দিয়েছে না তিনি আত্মহত্যা করেছেন বিষয়টি তদন্ত করে জানা যাবে। হোটেলের সিসিটিভি ফুটেজ দেখে পরে জানানো যাবে। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয় বলেও জানান ওসি।

তবে রমনা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) নূর মোহাম্মদ বলেন, সুব্রত সাহা হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে ২০ বছর ধরে কর্মরত ছিলেন। তিনি সকাল সাড়ে ৯টার দিকে হোটেলে প্রবেশ করেন। লিফটে করে তিনি ১১ তলায় যান। এরপর থেকে তার কোনো উপস্থিতি পাওয়া যায়নি। সকাল সাড়ে ১১টার দিকে পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা হোটেলে প্রবেশপথের বর্ধিত অংশের দোতালার ছাদে তার নিথর দেহ উপুড় হয়ে পড়ে থাকতে দেখেন। পড়নে ছিল সাদা রঙের স্ট্রাইপ শার্ট ও নীল রঙের প্যান্ট। পরে হোটেল কর্তৃপক্ষ রমনা থানা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ গিয়ে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে। পরে সিআইডির ক্রাইমসিন ইউনিট গিয়ে ঘটনাস্থল থেকে বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করে।

সুব্রত সাহা রাজধানীর হাতিরপুলে সপরিবারে থাকতেন। তার স্ত্রী ও ১ মেয়ে রয়েছে। তবে কি কারণে এ ঘটনা ঘটেছে- সে বিষয়ে পুলিশ তেমন কোনো তথ্য জানাতে পারেনি। পরিবারের সদস্যরাও তেমন কিছু জানাতে পারেননি। পুলিশের একটি সূত্র জানায়, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে ওই প্রকৌশলীর ১১ তলার ছাদ থেকে পড়ে গিয়ে মৃত্যু হয়েছে। তবে তিনি নিজে লাফিয়ে পড়েছেন নাকি তাকে কেউ ধাক্কা দিয়েছে- সে বিষয়টি পুলিশ তদন্ত করছে। এ ব্যাপারে পুলিশ হোটেলের সিসি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ জব্দ করেছে। হোটেলের বেশ কয়েকজন কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পুলিশ। বিকালে তার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠিয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

 117 সর্বমোট পড়েছেন,  3 আজ পড়েছেন

শেয়ার করুন