রিপোর্ট 1161

ফরিদগঞ্জে বিদ্যুৎকর্মীদের অবরুদ্ধের ঘটনায় মামলা

ফরিদগঞ্জ প্রতিনিধি:
উপজেলা সদরসহ প্রত্যন্ত অঞ্চলে বিদ্যুৎতের লোডশেডিংয়ে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে জনজীবন। কখনও কখনও বিদ্যুৎ পাওয়া গেলেও ভোল্টেজ উঠা নামার কারণে ফ্রিজ, এসি, কম্পিউটার, মোবাইলসহ বৈদ্যুতিক সরঞ্জামগুলো নষ্ট বিকল হয়ে পড়ছে।

চলমান লোডশেডিংয়ের প্রতিবাদে ২০জুন সোমবার উপজেলার রুপসা বাজারে বিক্ষুব্ধ জনতার হাতে কয়েকজন বিদ্যুৎকর্মী অবরুদ্ধ অবস্থায় লাঞ্ছিত হয়। এক পর্যায় রুপসা জমিদার হাসান চৌধুরী কোনক্রমে জনতার আক্রোশ থেকে তাদের রক্ষা করেন। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের উদ্ধার করে। এ ঘটনায় পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির ফরিদগঞ্জ জোনাল শাখা কর্তৃপক্ষ মামলা দায়ের করেছে। যদিও তারা সংবাদমাধ্যমকে বলেছিলেন ঘটনাটির সমাধান হয়েছে।

মঙ্গলবার (২১জুন) ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশ পল্লীবিদ্যুতের এজিএম (কম) এর দায়ের করা অভিযোগটি মামলা হিসেবে গ্রহণ করেছে।

জানা গেছে, বিদ্যুতের রেকর্ড পরিমান উৎপাদন হলেও তার পুরোপুরি সুফল পাচ্ছে না চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলাবাসী। উপজেলাসহ গ্রামাঞ্চলে লোডশেডিংয়ের মাত্রা বেড়েই চলছে। উপজেলা পরিষদের মাসিক সমন্বয় সভাতে বেশ কয়েকজন ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান লোডশেডিংয়ের কথা উত্থাপন করেন।

piles fistula

শিক্ষক নাছির উদ্দিন বলেন , বিদ্যুতের লোডশেডিংএ তারা অতিষ্ঠ। গড়ে দিনে মাত্র কয়েকঘন্টা বিদ্যুৎ পাই।

ধানুয়া এলাকার মনির হোসেন জানান, প্রতিদিন ৪/৫ ঘন্টা লোডশেডিং হচ্ছে। তাহলে এতবিদ্যুৎ কোথায় যায়।

অগ্রণী ব্যাংক রুপসা বাজার শাখার সিনিয়র অফিসার মামুন হোসেন জানান, গত একমাস ধরে আমরা বিদ্যুতের লোডশেডিং এর কারণে আমাদের সেবাদান ব্যহত হচ্ছে। বিকল্প ব্যবস্থা চালু রাখতে গিয়ে উধ্বর্ধন কর্তৃপক্ষের নিকট জবাবদিহির মুখে পড়েছি।

চান্দ্রা বাজারের কাঠমিস্ত্রি আমিন বলেন, বিদ্যুতের লোডশেডিংএর কারণে আমরা যারা দিনমজুর হিসেবে কাজ করছি তারা দুর্ভোগের শিকার। বিদ্যুতের কারণে কাজ না হলে আমরা হাজিরা থেকে বঞ্চিত হই।

এসব কারণে গ্রামাঞ্চলে লোকজন বিদ্যুতের এই দুরাবস্থার কারণে বিক্ষুব্ধ। কয়েকদিন পুর্বে চাঁদপুর পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি-২ ফরিদগঞ্জ জোনাল শাখার লোকজন রূপসা উত্তর ইউনিয়নের রূপসা বাজারে বকেয়া বিদ্যুৎ বিল বিষয়ে মাইকিং করতে গিয়ে তারা জনরোষের শিকার হয়। এ সময় রূপসা জমিদার সৈয়দ মেহেদী হাসান চৌধুরীর বাসায় তার উপস্থিতিতে উভয় পক্ষের মধ্যে মিমাংসা হয়। কিন্তু পল্লীবিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ সেখানে উপস্থিত সংবাদকর্মীদের কাছে বিষয়টি মিমাংসা হয়েছে বলে স্বীকার করলেও ঘটনাস্থল থেকে এসে ভোল পাল্টে ফেলে । ঘটনার মিমাংসাকারীদের বিরুদ্ধে উল্টো মামলা দায়ের করেছে।

থানায় দায়েরকৃত মামলা অনুসারে মামলায় ঐতিহ্যবাহী রূপসা জমিদার পরিবারের সদস্য সৈয়দ মেহেদী হাসান চৌধুরীকে প্রধান আসামী এবং রূপসা বাজার ব্যবসায়ী কমিটির সভাপতি ফারুক খান , এশিয়ান টিভির চাঁদপুর প্রতিনিধি জাহিদ হোসেনসহ ৮জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে।

এব্যাপারে জমিদার পরিবারের সদস্য সৈয়দ মেহেদী হাসান চৌধুরী জানান, ঘটনার দিন বিক্ষুব্ধ লোকজন পল্লীবিদুতের কর্মীদের অবরুদ্ধ করে রাখার ঘটনা শুনে আমি তাদেরকে আমার নিজ বাড়িতে আশ্রয় দিয়ে নিরাপদ রাখি। পরে আমার উপস্থিতিতেই থেকে বিষয়টির সুরাহা হয়। কিন্তু তারা এখন আমার নামেই মামলা দায়ের করলো। তিনি আরো বলেন, রূপসা এলাকায় পল্লীবিদ্যুতের সাব-স্টেশন স্থাপনের জন্য আমি নিজে জমি দেয়ার প্রস্তাব পর্যন্ত দিয়েছি।

পল্লীবিদ্যুৎ কর্র্তৃপক্ষ মামলা দায়ের করার বিষয়টি স্বীকার করে ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ শহিদ হোসেন জানান, আমরা বিষয়টি তদন্ত করছি।

মামলা ও লোডশেডিং বিষয়ে ডিজিএম প্রকৌশলী কামাল হোসেন জানান, রুপসার ঘটনায় থানায় অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। গত সপ্তাহে ৩/৪ দিন লোডশেডিং এর সত্যতা স্বীকার করে জানান, বৃষ্টি ও যান্ত্রিক ত্রæটিও ছিল।

 118 সর্বমোট পড়েছেন,  4 আজ পড়েছেন

শেয়ার করুন