রিপোর্ট 1172

বিধবার ঘরে যুবককে আটকের পর টাকা আদায়, আ’লীগ নেতাসহ গ্রেফতার ২

নিউজ ডেস্ক :

নাটোরের সিংড়ায় বিধবার ঘর থেকে ইউনুস আলী নামের এক যুবককে আপত্তিকর অবস্থায় আটক করেন স্থানীয়রা। পরে লক্ষাধিক টাকার বিনিময়ে দুজনকে ছাড়ার খবর পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা রওশন আলী ও যুবলীগ নেতা সাইফুল ইসলামকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (২১ জুন) বিকেলে তাদের আটকের পর থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। এদিন রাতেই বিধবা নারী বাদী হয়ে তাদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেন।

স্থানীয়রা জানান, ইউনুস আলী বড়াইগ্রাম উপজেলার জোনাইল এলাকার তয়জাল ইসলামের ছেলে। সিংড়া উপজেলার ইটালি ইউনিয়নের বাঁশবাড়িয়া গ্রামে ধান কাটতে এসে ওই বিধবার সঙ্গে পরিচয় হয় তার। এরপর তাদের মধ্যে সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে সোমবার সন্ধ্যায় বিধবার বাড়ি যান ইউনুস। এলাকাবাসী বিষয়টি বুঝতে পেরে রাত ১টার দিকে তাদের দুজনকে আটক করেন। ইউনুস আলীকে বারান্দার খুঁটির সঙ্গে বেঁধে রাখেন তারা। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে দুজনকেই তাদের অভিভাবকদের হাতে তুলে দেন স্থানীয় ইউপি সদস্য, আওয়ামী লীগ ও যুবলীগ নেতারা।

অভিযোগ রয়েছে, স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রওশন আলী, ইউপি সদস্য কুরবান আলী, ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুল ইসলাম এবং কর্মী আনোয়ার হোসেন আরোন, সবুজ আলী, শাহিন আলম, সাদ্দাম হোসেন দুজনকে আটকের পর লক্ষাধিক টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দেন।

স্থানীয় কয়েকজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, বিধবার জমির দলিল গ্রামের মজিবুর রহমান নামের একজনের কাছে রেখে আনুমানিক ৭০ হাজার টাকা ও যুবকের বাবার কাছ থেকে আরও ১ লাখ টাকা নিয়েছেন আওয়ামী লীগ ও যুবলীগ নেতারা।

এ বিষয়ে মজিবুর রহমান বলেন, ‘বিধবা নারী আজ আমার কাছ থেকে টাকা নিয়েছে। কিন্তু কত টাকা বলা যাবে না, সমস্যা আছে। ওই নারী নিজেই বলবে।’

টাকা নেওয়ার বিষয় অস্বীকার করে যুবলীগকর্মী সবুজ আলী বলেন, ‘আমরা রাতে তাদের আপত্তিকর অবস্থায় আটক করি। সকালে ইউনুস আলীর বাবা এসে তাকে জুতা মেরে নিয়ে গেছেন।’

দুপুরে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রওশন আলীর মোবাইল নম্বরে কয়েকবার কল দিয়ে বন্ধ পাওয়া যায়। বিকেলে তাকে আটক করা হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ।

ইউপি সদস্য কুরবান আলী বলেন, ‘আমি ঘটনাস্থলে ছিলাম না, সকাল থেকে সারাদিন সিংড়ায় মিটিংয়ে ছিলাম। আমাকে ফাঁসানোর জন্য নাম বলেছে।’

piles fistula

ইটালি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. মতিউর রহমান রাজা বলেন, ‘ঘটনাটি শুনেছি। অভিযুক্তরা আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। সবাই খুবই শৃঙ্খল ও ভদ্র প্রকৃতির মানুষ বলে জানি। এ ঘটনায় পুলিশ আওয়ামী লীগ নেতা রওশন আলী ও যুবলীগকর্মী সাইফুলকে আটক করেছে শুনেছি। তবে তারা টাকা নিয়ে ওই যুবককে ছেড়ে দিয়েছে কি না জানি না।’

Hakim Mizanur Rahman New ad

সিংড়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. রফিকুল ইসলাম  বলেন, এ ঘটনায় দুজনকে আটক করা হয়েছে। রাতে বিধবা বাদী হয়ে থানায় মামলা করেন। ওই মামলায় আটক দুজনকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। বুধবার সকালে তাদের আদালতে পাঠানো হবে।

 128 সর্বমোট পড়েছেন,  4 আজ পড়েছেন

শেয়ার করুন